ঢাকা, ২০ আগস্ট ২০১৮, সোমবার

বাংলাদেশে ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ পেয়েছে ভারতের এনটিপিসি

মানবজমিন ডেস্ক | ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৯:৪৫

বাংলাদেশে ১৫ বছরের জন্য ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ পেয়েছে ভারতের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল থার্মাল পাওয়ার করপোরেশন লিমিটেড (এনটিপিসি)। এ বছর জুন মাস থেকেই ওই বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হতে পারে। এনটিপিসি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেছে। প্রাথমিক হিসাব অনুযায়ী, প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের শুল্ক পড়বে ৩.৪২ রুপি। এই চুক্তির মাধ্যমে প্রতি বছর ভারতের এনটিপিসি উপার্জন করবে ৯০০ কোটি রুপি রাজস্ব। বিবৃতিতে বলা হয়, এনটিপিসি বিদ্যুৎ ভাইপার নিগম লিমিটেড (এনভিভিএন) স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি দুটি ক্যাটেগরিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ দেবে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকে। বর্তমানে দুটি আলাদা গ্রিডের মাধ্যমে বাংলাদেশকে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দিচ্ছে ভারত। এর একটি গ্রিড পশ্চিমবঙ্গে। অন্যটি ত্রিপুরায়। দু’দেশের সরকারের মধ্যে চুক্তির আওতায় এ বিদ্যুৎ দেয়া হচ্ছে বাংলাদেশকে। অন্যদিকে রামপালে ১৩২০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের অংশীদার এনটিপিসি। তবে নতুন করে যে বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে এনটিপিসি তা শুরু হচ্ছে এ বছরের জুনে। তবে তার আগে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সরাসরি সংযোগ স্থাপন করতে হবে। তবে যে বিদ্যুৎ আনা হচ্ছে তার দাম কত পড়বে সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায় নি। ভারতের আরো দুটি শীর্ষ স্থানীয় বিদ্যুৎ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে পরাজিত করে বাংলাদেশে ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ পেলো এনটিপিসি এনভিভিএন। তাদের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভারত থেকে ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য দরপত্র আহ্বান করে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। ওই বিদ্যুৎ দুই ধাপে সরবরাহের কথা বলা হয়। স্বল্প মেয়াদটি হলো ২০১৮ সালের ১লা জুন থেকে ২০১৯ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত। দীর্ঘমেয়াদটির সময়কাল হলো ২০২০ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে ২০৩৩ সালের ৩১শে মে। ২০১৮ সালের ১১ই জানুয়ারির মধ্যে দরপত্র জমা নেয়া হয়। এতে এনভিভিএন, আদানি, পিটিসি এবং সেমবকোর নামে মোট চারটি প্রতিষ্ঠান দরপত্র দাখিল করে। ২০১৮ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি দরপত্র খোলা হয়। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য দরপত্র বা কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে ভারতের রাষ্ট্রীয় বিদ্যুৎ বিষয়ক কোম্পানির এটা দ্বিতীয় ঘটনা। এর আগে ২০১৩ সালে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য কাজ পায় পাওয়ার ট্রেডিং করপোরেশন অব ইন্ডিয়া। গত বছর এপ্রিলে ভারত সফর করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে সময় তাকে বিদ্যুৎ বিষয়ক নিরাপত্তার আশ্বাস দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।