× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার

আফগানিস্তানে পৃথক দুই হামলায় নিহত ২৩

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১০ মার্চ ২০১৮, শনিবার, ৯:১৭

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে আত্মঘাতী বোমা হামলায় কমপক্ষে সাত জন নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে আরো সাতজন। শুক্রবার কাবুলের একটি শিয়া মসজিদের কাছে এই হামলা চালানো হয়। অঞ্চলটিতে সংখ্যালঘু শিয়া মুসলিমরা বসবাস করে। অন্যদিকে, দেশটির তাকহার প্রদেশের একটি ‘চেকপয়েন্টে’ আক্রমণ করে ১৬ নিরাপত্তা কর্মীকে হত্যা করেছে তালেবান জঙ্গিরা। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা। খবরে বলা হয়, কাবুলে শিয়া হাজারা সম্প্রদায়ের প্রয়াত নেতা আব্দুল আল মাজারির মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের কাছে এই হামলা চালানো হয়। হামলাকারী অনুষ্ঠানে সমবেত মানুষের মধ্যে অবস্থান নেয়।
পরে সে শরীরে বেঁধে রাখা বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিজেকে উড়িয়ে দেয়। উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালে তালেবানরা আব্দুল আলি মাজারিকে হত্যা করে। এক টুইটার বার্তায় আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নাজিব দানিস বলেন, শুক্রবার বিস্ফোরণে সাত জন শহীদ হয়েছেন। আর আহত হয়েছেন আরো সাত জন। তাৎক্ষণিকভাবে কোনো গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।
এদিকে, আফগানিস্তানের তাকহার প্রদেশের খাজা ঘার জেলায় তালেবানরা নিরাপত্তা বাহিনীর ১৬ জন সদস্যকে হত্যা করেছে। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, দিনের শুরুতে স্থানীয় একটি ‘চেক পয়েন্টে’ আক্রমণ করে এসব নিরাপত্তাকর্মীকে হত্যা করে তালেবান জঙ্গিরা। খাজা ঘার জেলার প্রধান নির্বাহী আব্দুল্লাহ বলেন, তাকহারে সেনাবাহিনীর ১০ সদস্য ও পুলিশের ৬ জন সদস্য নিহত হয়েছে। পরে এক বিবৃতিতে হামলার দায় স্বীকার করেছে তালেবান।
সম্প্রতি আফগানিস্তানে জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবান ও আইএসের হামলা বৃদ্ধি পেয়েছে। জানুয়ারিতে তালেবানরা কাবুলের কূটনৈতিক অঞ্চলে বিস্ফোরক ভর্তি একটি অ্যাম্বুলেন্সে বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে নিহত হয় অন্তত ১০৩ জন। আহত হয় আরো ২৩৫ জন। একদিন পরেই কাবুলের মিলিটারি একাডেমিতে তালেবান বন্দুকধারীর হামলায় ১১ আফগান সেনা নিহত হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর