ঢাকা, ২৫ জুন ২০১৮, সোমবার

বিশ্বে সর্ববৃহৎ অস্ত্র আমদানিকারক ভারত দ্বিতীয় সৌদি আরব

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ মার্চ ২০১৮, মঙ্গলবার, ৯:১৩

গত পাঁচ বছরে এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে অস্ত্র আমদানি। অঞ্চলগুলোতে যুদ্ধ, উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করার কারণে এমনটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। অস্ত্র তৈরিতে অক্ষম হওয়ায় ভারত হয়ে উঠেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অস্ত্র আমদানিকারক। কিন্তু চীনের ক্ষেত্রে অবস্থা ভিন্ন। বাংলাদেশের আমদানিকৃত অস্ত্রের ৭১ শতাংশ এসেছে চীন থেকে। এ ছাড়া, পাকিস্তানের মোট আমদানিকৃত অস্ত্রের ৭০ শতাংশও সরবরাহ করেছে চীন। সোমবার প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে এই তথ্য উঠে এসেছে। স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট (সিপরি)’র এই গবেষণাপত্র অনুসারে, ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে সংঘাতে জর্জরিত মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র আমদানি দ্বিগুণ হয়েছে। এ ছাড়া, বিশ্বে আমদানিকৃত মোট অস্ত্রের ৩২ শতাংশই আমদানি হয় মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। এর মধ্যে সৌদি আরব হচ্ছে গত পাঁচ বছরে পুরো বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয় বৃহৎ অস্ত্র আমদানিকারক। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। খবরে বলা হয়, সিপরি একটি স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি প্রতি পাঁচ বছরে পুরো বিশ্বে কি পরিমাণ অস্ত্র সরবরাহ হচ্ছে তা পর্যবেক্ষণ করে থাকে। যাতে করে, অস্থায়ী অস্থিরতা এড়ানো যায়। সংস্থাটির সমপ্রতি প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে, ভারত হচ্ছে বর্তমানে পুরো বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বড় অস্ত্র আমদানিকারক। এর পরে অবস্থান করছে ইয়েমেনে যুদ্ধরত সৌদি আরব। সৌদি আরবে রপ্তানি করা মোট অস্ত্রের ৬২ শতাংশই যায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে। বৃটেন থেকে যায় আরো ২৩ শতাংশ। এদিকে, শুক্রবার সৌদি আরবের সঙ্গে নতুন একটি চুক্তি করেছে বৃটেন। চুক্তি অনুসারে, সৌদি আরবকে ৪৮টি ইউরোফাইটার টাইফুন নামের যুদ্ধবিমান ও সামরিক যন্ত্রিপাতি তৈরিকারক বিএই সিস্টেম সরবরাহ করবে যুক্তরাজ্য। যদিও চুক্তিটি বৃটেনসহ বিশ্বজুড়ে সমালোচিত হয়েছে।
মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্য থাকলেও, এশিয়া ও ওশেনিয়ায় সবচেয়ে বৃহৎ অস্ত্র সরবরাহকারীর স্থান নিজেদের দখলে রেখেছে রাশিয়া। গত পাঁচ বছরে পুরো বিশ্বের মোট অস্ত্র আমদানির ৪২ শতাংশই এই অঞ্চলগুলোতে হয়েছে। আর বিশ্বে একক দেশ হিসেবে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র আমদানি করেছে ভারত। ভারতে আমদানিকৃত অস্ত্রের ৬২ শতাংশই এসেছে রাশিয়া থেকে। সিপরি’র হিসাব অনুসারে, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভারতে অস্ত্র সরবরাহের পরিমাণও কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ বিষয়ে সিপরি’র গবেষক সিয়েমন উইযেমান বলেন, একপাশে পাকিস্তান ও অন্যপাশে চীনের সঙ্গে উত্তপ্ত অবস্থা থাকায় ভারতে প্রধান অস্ত্র আমদানির চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে, চীন নিজের প্রয়োজনীয় অস্ত্র নিজেই তৈরি করতে পারছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও মিয়ানমারে অস্ত্র সরবরাহ করে দেশগুলোর সঙ্গে সমপর্কও জোরালো করে তুলছে।  

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।