ঢাকা, ২৬ মে ২০১৮, শনিবার
বিমান দুর্ঘটনা

বাবা-মায়ের সঙ্গে দেখা হলো না শ্রেয়ার

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ১৩ মার্চ ২০১৮, মঙ্গলবার, ১:৫৪

নাম শ্রেয়া ঝাঁ। বয়স ২৪। সহপাঠী ও সিনিয়রদের ভাষায়, বাংলাদেশের কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা করতে নেপাল থেকে আসা মেয়েটি হাসিখুশী, প্রাণবন্ত, মেধাবী, সাংস্কৃতিকমনা ও ভীষণ রকম সুন্দর মনের অধিকারী। এমবিবিএস শেষ বর্ষের ছাত্রী ছিল সে। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস পড়াশোনা শেষ করে দেশের মানুষের সেবা করার ইচ্ছেটা তার পূরণ হলো না আর।  
কুমুদিনী মেডিকেল কলেজের প্রফেসর সূত্রে শ্রেয়া ঝাঁ’র নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। গতকাল ঢাকা থেকে নেপালের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা ইউএস- বাংলা এয়ারলাইন্সের দুর্ঘটনায় নিভে গেল এই প্রদীপ। নেপাল স্থানীয় সময় দুপুর ২ টার দিকে ত্রিভুবন বিমানবন্দরে অবতরণকালে পাশের একটি মাঠে ইউএস-বাংলার বোমবার্ডিয়ার ড্যাশ ৮ কিউ ৪০০ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে সর্বশেষ খবর অনুযায়ী গতকালকের এই দুর্ঘটনায় ৬৭ জন যাত্রী ও ৪ জন ক্রুসহ মোট ৭১ জনের মধ্যে এ পর্যন্ত ৪৯ জন নিহত হওয়ার বিষয়টি জানা গেছে।
এদিকে শ্রেয়া ঝাঁ’র এই অকাল মৃত্যুতে মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তাদের মাঝে শোক বিরাজ করছে। প্রাতিষ্ঠানিক ছুটি না থাকলেও শ্রেয়া তার বাবা-মায়ের সাথে দেখা করার ব্যকুলতায় ছুটি নিয়েছিল নিজ মাতৃভুমি নেপাল যাওয়ার উদ্দেশ্যে। কিন্তু কে জানতো এটাই শ্রেয়ার শেষ ছুটি, কে জানতো আর কখনোই বাবা-মায়ের সাথে দেখা হবেনা তার!

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।