× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

মতলব উত্তরে দেড় শতাধিক স্কুলে নেই কোনো খেলার মাঠ

বাংলারজমিন

মতলব উত্তর (চাঁদপুর) থেকে সংবাদদাতা | ১৪ মার্চ ২০১৮, বুধবার, ৭:৫১

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার দেড় শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোনো খেলার মাঠ নেই। কিন্তু মতলব উত্তর উপজেলায় ১৮০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে দেড় শতাধিক বিদ্যালয়েরই অল্প হলেও খেলার মাঠ থাকার কথা ছিল। কেননা, কোনো প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে গেলে যদি তা সরকারি রেজিস্ট্রেশন পেতে হয় তবে প্রথম শর্তই হচ্ছে ওই বিদ্যালয়ের নামে ৩৩ শতক জমি থাকতে হবে। আর কোনো বিদ্যালয়ের নামে ৩৩ শতক জমি থাকলে তাতে করে একাডেমিক ভবন নির্মাণ করার পরেও খেলার মাঠ থাকে। কিন্তু এ উপজেলার অধিকাংশ বিদ্যালয়েরই পুরো ৩৩ শতক জমি বিদ্যালয়ের দখলে নেই। অনেক ক্ষেত্রে তা স্থানীয়দের দখলে এবং বেশিরভাগ হাইস্কুলসংলগ্ন প্রাইমারি স্কুলগুলোর ভবন ব্যতীত ৩৩ শতকের বাদবাকি পুরো জমিই বেদখল।
উপজেলার ১৪ ইউনিয়ন ১ পৌরসভার চরকালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দখলে ৩৩ শতকের মধ্যে ১ শতক জমিও তাদের দখলে নেই। বর্তমানে স্কুলের ভবনটি যেখানে রয়েছে সেটি স্থানীয় একজনের ব্যক্তিগত জমি। এছাড়া উপজেলার গাজিরগাছখলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জোরখালি স. প্র. বিদ্যালয়, বড় মরাদোন স. প্রা. বিদ্যালয়, উত্তর নাউরী স. প্রা. বিদ্যালয়, পাঁচানী স. প্রা. বিদ্যালয়, সাড়ে পাঁচানী স. প্রা. বিদ্যালয়, ফরাজীকান্দি স. প্রা. বিদ্যালয়, কালিগাছতলা কাজী সুলতান স. প্রা. বিদ্যালয়, মুদাফর স. প্রা. বিদ্যালয়, ৬৫ এখলাছপুর স. প্রা. বিদ্যালয়সহ দেড় শতাধিক বিদ্যালয়েরই নেই কোনো খেলার মাঠ।
উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয় ঘুরে আরো দেখা যায়, অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে যেগুলোর ছাত্রছাত্রীরা স্কুল চলাকালীন থাকে খাঁচাবন্দি। স্কুলের ভবন ব্যতীত অবশিষ্ট জমি থাকলেও তা রয়েছে অন্যের দখলে। কোনো কোনো বিদ্যালয়ের আশপাশ এলাকায় সরকারি খাসজমি থাকলেও মাঠের জন্য জমি বরাদ্দের কোনো উদ্যোগই নেই সংশ্লিষ্টদের। সংশ্লিষ্ট স্কুলের শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও এলাকার লোকজন অভিন্ন সুরে বলেন, মাঠের অভাবে স্কুলগুলোতে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীর আয়োজন করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। তাছাড়া, বর্তমান সরকার তৃৃণমূল পর্যায় থেকে ফুটবল খেলোয়াড় তৈরি করার জন্য নিয়মিতভাবে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করে আসছেন। কিন্তু এ উপজেলার দেড় শতাধিক স্কুলে খেলার মাঠ না থাকায় সরকারের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে ব্যাহত আর উপজেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতাগুলো হচ্ছে দায়সারাভাবে। মাঠের অভাবে প্রাক-প্রস্তুতি না থাকায় উপজেলা পর্যায়ের অনেক খেলাধুলাই মানসম্মত হচ্ছে না। এমনকি অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই বিভিন্ন আয়োজনে অংশগ্রহণই করছে না। মতলব উত্তর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করতে হলে ৩৩ শতাংশ জমির প্রয়োজন হয়। বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের পরে শিশুদের খেলার মতো জমি থাকার কথা থাকলেও এ উপজেলার বেশকিছু বিদ্যালয়েই স্থানীয় কিছু সমস্যার কারণে খেলার মতো জায়গা নেই। তবে, সকলের সহযোগিতা পেলে এ সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো বলে আশা করছি।


অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর