× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার

জাবিতে ‘অমর একুশ’ ভাস্কর্যের উদ্বোধন

বাংলারজমিন

জাবি প্রতিনিধি | ১৬ এপ্রিল ২০১৮, সোমবার, ৯:৪৬

 জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত ভাস্কর্য ‘অমর একুশ’র পূর্ণ সংস্কারের পর উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম এটি উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম। এ সময় তিনি বলেন, দীর্ঘদিন যাবত অসমাপ্ত ভাস্কর্যটি আজ তার পূর্ণাঙ্গ রূপে দৃশ্যমান হওয়ায় আমরা সত্যিই আনন্দিত ও অভিভূত। বাংলা ভাষা ও ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসের অমলিন চেতনা এই ভাস্কর্যটি লালন করবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।
এ সময় ভাস্কর্যের স্থপতি জাহানারা পারভীন বলেন, ১৯৯১ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি এ ভাস্কর্যের উদ্বোধন করা হলেও সেই সময়ে ভাস্কর্যটির মূল নকশা অনুযায়ী সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। দীর্ঘদিন পর ভাস্কর্যটির পূর্ণাঙ্গ রূপ দেখতে পেরে আমি আনন্দিত। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার জীবদ্দশায় এই ভাস্কর্যটি যেন আমার অনুমতি ব্যতীত সংস্কার করা না হয়।’ ভাস্কর্যটির মূল নকশায় এর আঙিনায় পলাশ ফুলের গাছ লাগানোর পরিকল্পনা করা হয়। যেহেতু ফেব্রুয়ারি মাসে পলাশ ফুল ফোটে। এ সময় তিনি অমর একুশের আঙিনায় একটি পলাশ ফুলের গাছ রোপণ করেন।
পূর্ণাঙ্গ ভাস্কর্যটি উদ্বোধনকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মঞ্জুরুল হক, অধ্যাপক আব্দুল্লাহেল কাফী, অধ্যাপক বশির আহমেদ, অধ্যাপক ড. সামছুন্নাহার খানম, সহযোগেী অধ্যাপক ড. জেবউনন্নেছাসহ বিভিন্ন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস ভিত্তিক ভাস্কর্য ‘অমর একুশে’ নাম পরিবর্তন করে ‘অমর একুশ’ করা হয়েছে। অসম্পূর্ণ ভাস্কর্যটি ১৯৯১ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক কাজী সালেহ উদ্দিন আহমেদ উদ্বোধন করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর