ঢাকা, ২০ আগস্ট ২০১৮, সোমবার

ভারতের উত্তর প্রদেশে ফ্লাইওভার ধসে নিহত ১৮

মানবজমিন ডেস্ক | ১৭ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৯:৩৬

ভারতের উত্তরাঞ্চলে উত্তর প্রদেশ অঙ্গরাজ্যের বারানসি শহরে নির্মাণাধীন এক ফ্লাইওভার ধসে কমপক্ষে ১৮ জন নিহত হয়েছেন। ফ্লাইওভারটির ধসে পড়া অংশটির নিচে চাপা পড়েছে যাত্রীসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি। এর মধ্যে একটি মিনিবাসও রয়েছে। বুধবার নির্মানাধীন ফ্লাইওভারটির দুটি খুঁটি ধসে পড়লে এর একটি বিশাল অংশ পাশে নিচের রাস্তায় পতিত হলে এই ঘটনা ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে নিহতের সংখ্যা পরবর্তীতে আরো বাড়তে পারে।  এ খবর দিয়েছে নিউ স্ট্রেইট টাইমস ও এনডিটিভি।
ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্সকে (এনডিআরএফ) উদ্ধৃত করে এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ধসে পড়া অংশটুকুর নিচ থেকে ১৮টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে মাত্র তিন জনকে। ধারণা করা হচ্ছে, আরো অনেকে নিচে চাপা পড়ে আছেন। তাদের উদ্ধার করার জন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত উদ্ধার কাজে এনডিআরএফ’র পাঁচটি দল কাজ করছে। এছাড়া ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত রয়েছে।  ধারণা করা হচ্ছে, আটকা পড়া অনেকেই ফ্লাইওভারটির নির্মাণে নিয়োজিত শ্রমিক।  ঘটনাস্থলের বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও ফুটেজ থেকে দেখা যায় যে, কনক্রিটের বিশাল খণ্ডটির নিচে গাড়ি ও একটি বাস চাপা পড়ে আছে। এসব যানে এখনো বেশ কয়েকজন মানুষ আটকা পড়ে আছে। স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত মাত্র হাতেগোনা কয়েকজন মানুষকে সফলভাবে উদ্ধার করা হয়েছে। ধসে পড়া খণ্ডটি উঠানোর জন্য আটটি ক্রেন ব্যবহার করা হচ্ছে। একজন প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক জানিয়েছেন, কনক্রিটের প্রকাণ্ড খণ্ডটির নিচে অন্তত চারটি গাড়ি, একটি অটোরিকশা ও একটি মিনিবাস চাপা পড়ে আছে। জরুরি সাহায্য পৌঁছাতে এক ঘণ্টার মতো সময় লেগেছিল। ফ্লাইওভারটি লম্বায় ২ হাজার ২৬১ মিটার দীর্ঘ। এটা তৈরিতে মোট ১২৯ কোটি রুপি ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। ফ্লাইওভারটি নির্মাণের দায়িত্বে  রয়েছে উত্তর প্রদেশ স্টেট ব্রিজ করপোরেশন। এখন পর্যন্ত এর ৫৬ শতাংশ কাজ সমপন্ন হয়েছে। ফ্লাইওভারের যে অংশটুকু ধসে পড়েছে সেটুকুর কাজ শেষ হয় ফেব্রুয়ারি মাসে।

এই ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি জানিয়েছেন, তিনি ঘটনাটিতে চরমভাবে ব্যথিত হয়েছেন। এক টুইটে তিনি বলেন, আমি প্রার্থনা করি যে আহতরা শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠুক। কর্মকর্তাদের সঙ্গে এই ঘটনায় আক্রান্তদের সকল সম্ভাব্য উপায়ে সমর্থন জানানোর কথা বলেছি। উল্লেখ্য, বারানসি হচ্ছে মোদির নিজের নির্বাচনী এলাকা।
উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এ ঘটনার তদন্ত করার জন্য একটি কমিটি গঠনের ও  ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া তার সহকারী কেশাব প্রসাদ মাইয়ুরা ও মন্ত্রী নীলকান্ত তিওয়ারিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের আদেশ দিয়েছেন।
ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস এক টুইটে বলেছে, আমরা বারানসিতে একটি নির্মাণাধীন ফ্লাইওভার ধসে পড়ার ঘটনায় ব্যথিত। এই ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন তাদের পরিবারের প্রতি আমাদের সমবেদনা রইলো। আর যারা আহত হয়েছেন আমরা তাদের দ্রুত সুস্থতা প্রাপ্তির কামনা করছি।   
ভারতে ভবন বা অন্যান্য বড় ধরনের অবকাঠামো ধসে পড়ার ঘটনা বিরল নয়। গত সেপ্টেম্বরে একটি ছয় তলা ভবন ধসের ঘটনায় ৩৩ জন মানুষ প্রাণ হারান। এর আগে ২০১৬ সালে কলকাতায় একটি ফ্লাইওভার ধসের ঘটনায় নিহত হন ২০ জন। এছাড়া হতাহতের পরিমাণ কম এমন ধসের ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।