× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৫ অক্টোবর ২০১৮, সোমবার

মেসি নেইমারের এক গোল ১০ হাজার শিশুর খাবার জোগাবে

ফিফা বিশ্বকাপ-২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক | ২ জুন ২০১৮, শনিবার, ১০:২২

বিশ্বকাপে লিওনেল মেসি কিংবা নেইমারের একেকটি গোল ১০ হাজার শিশুর মুখে হাসি ফোটাবে। যা লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের স্কুলে ১০ হাজার প্যাকেট খাবারের জোগান দেবে। এমন মহৎ উদ্যোগ নিয়েছে মাস্টারকার্ড কোম্পানি। গত বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় জানায়, ২০১৮ বিশ্বকাপসহ অফিসিয়াল টুর্নামেন্টে মেসি অথবা নেইমারের প্রতি গোলেই জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য প্রোগ্রামে তারা এই পরিমাণ খাবার দান করবে। এই আয়োজনের অংশ হতে পেরে গর্বিত আর্জেন্টাইন অধিনায়ক মেসি। তিনি বলেন, ‘এই প্রচারাভিযানের অংশ হতে পেরে আমি খুবই গর্বিত। এটা হাজারো শিশুর জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনবে। আমি আশা করি এতে অনেকের মুখে হাসি ফুটে উঠবে।’ শিশুদের সাহায্যে অংশীদার হতে পেরে ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।
তিনি বলেন, ‘এই অঞ্চলের শিশুদের খাবারের অভাব দূর করা এবং তারা যেন আরো আশা দেখতে পায় সেটিই আমরা নিশ্চিত করতে চাই। আমরা লাতিন আমেরিকানরা সংঘবদ্ধ হলে যে অসাধারণ কিছু করতে পারি সেই বিশ্বাসটা আমাদের রয়েছে। এটাই তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ। একত্রে আমরা ক্ষুধা নিবারণের জন্য লড়াই করতে পারি।’ এই প্রজেক্ট বিশাল জনগোষ্ঠীর জন্য কতটা কল্যাণকর সেটি তুলে ধরেন মাস্টারকার্ড’র আঞ্চলিক মুখপাত্র আনা ফেরাল। তিনি বলেন, ‘লাতিন আমেরিকায় ৪০ মিলিয়নের বেশি মানুষ ক্ষুধা কষ্টে ভুগছে। যার বেশিরভাগই শিশু। ক্ষুধা ও শিশুদের অপুষ্টিকে প্রতিহত করাটা হবে শিক্ষা ও দারিদ্র্য দূরীকরণের মূল চাবিকাঠি। ‘টুগেদার উই আর টেন’ স্লোগানের সামনে গত এপ্রিল থেকে মাস্টারকাড’র এই উদ্যোগের পথচলা শুরু। আগ্রহী যে কেউ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সরাসরি অর্থ দান করতে পারবেন। আবার মাস্টারকার্ড দিয়ে দান করলে প্রতিবারে কোম্পানি ১০টি স্কুলে খাবার দেবে। এই প্রক্রিয়ায় এরই মধ্যে ৩ লাখ খাবারের ব্যবস্থা করেছে মাস্টারকার্ড। ভবিষ্যতে সংখ্যাটা আরো দ্রুত বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। মেসি নেইমার যত বেশি গোল করবেন ততো বেশি শিশুদের খাবারের জোগান মিলবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর