× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার

মিশরের প্রথম ম্যাচেই ফিরছেন সালাহ?

ফিফা বিশ্বকাপ-২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক | ১০ জুন ২০১৮, রবিবার, ৯:৪৬

এবারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে উরুগুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামবে মিশর। আর এ ম্যাচেই মাঠে ফিরবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন চোটের কারণে মাঠের বাইরে থাকা দলের সেরা তারকা মোহাম্মদ সালাহ। গত মাসে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালের রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে পায়ে চোট পান সালাহ। এরপরে থেকেই মাঠের বাইরে রয়েছেন এ লিভারপুল ফরোয়ার্ড। চলতি মৌসুমে অলরেডদের হয়ে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়েছেন সালাহ। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে গোল করেছেন ৪৪টি। বর্তমানে স্পেনের বার্সেলোনায় পুনর্বাসনে রয়েছেন তিনি। গতকাল স্প্যানিশ গণমাধ্যম মার্কাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এবারের মিশরের বিশ্বকাপে মিশরের লক্ষ্য ও ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে কথা বলেন সালাহ।
তার সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো:
প্রশ্ন: আপনার চোটের অবস্থা এখন কেমন? বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে কি খেলতে পারবেন?
সালাহ: এখন আমি অনেক ভালো আছি। আশা করছি উরুগুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই মাঠে নামতে পারবো। তবে এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে ম্যাচের আগে আমি কতটা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি।
প্রশ্ন: চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে চোট পেয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন। ক্যারিয়ারে এটাই কি ছিলো সবচেয়ে খারাপ মুহূর্ত?
সালাহ: হ্যাঁ, আমার ক্যারিয়ারে এটাই ছিলো সবচেয়ে খারাপ সময়। কারণ এমন সময়ে (বিশ্বকাপের আগে) চোট পাওয়া যে কোন খেলোয়াড়ের জন্যই দুর্বিষহ ব্যাপার।
প্রশ্ন: অবশেষে আমরা আপনাকে রাশিয়া বিশ্বকাপে মাঠে দেখবো। বিশ্বকাপে খেলা নিয়ে কি কোনো ভয় পেয়েছিলেন?
সালাহ: যখন আমি মাঠে পড়ে গিয়েছিলাম, তখন শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেছি এবং অনেক ভয় পেয়েছিলাম। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে খেলতে না পারায় খুব রাগ এবং দুঃখ হয়েছিল আমার। আর কিছুক্ষণ পরে যখন বুঝতে পেরেছিলাম যে বিশ্বকাপে খেলতে পারবো না তখন আমার কাছে সব কিছু দুর্বিষহ মনে হয়েছিল।
প্রশ্ন: সার্জিও রামোসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে পড়ে যাওয়াটা অনেকেই বলছে এটা একটা স্বাভাবিক ঘটনা ছিল। আপনিও কি মনে করেন এটা স্বাভাবিক ছিল?
সালাহ: আমি জানি না। হয়তো স্বাভাবিক ছিল।
প্রশ্ন: এ পর্যন্ত রামোস কি আপনাকে কোনো বার্তা পাঠিয়েছে?
সালাহ: হ্যাঁ, সে আমাকে একটি বার্তা পাঠিয়েছে। কিন্তু আমি তাকে কখনো বলি নাই যে, ঐ ঘটনাটা স্বাভাবিক ছিল।
প্রশ্ন: এবারের বিশ্বকাপে ইউরোপীয় দল গুলোর মধ্যে কাকে এগিয়ে রাখছেন। বিশ্বকাপে মিশর কোয়ালিফাই করাকে কিভাবে দেখছেন?
সালাহ: ২৮ বছর পর বিশ্বকাপের মূল পর্বে কোয়ালিফাই করেছি আমরা। এটা কোনো স্বাভাবিক বিষয় নয়। কারণ আমরা সাতবার আফ্রিকান কাপ অব নেশনসের শিরোপা জিতেছি। আর গত ২০০৬, ২০০৮ ও ২০১০ আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। কিন্তু বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে পারি নাই। আমি আবারো বলছি সত্যিই এটা আমাদের জন্য বড় ব্যাপার। আমি মনে করি এবারের বিশ্বকাপে ইউরোপিয়ানদের মধ্যে স্পেনের শিরোপা জেতার সম্ভাবনা বেশি রয়েছে।
প্রশ্ন: এবারের বিশ্বকাপে মিশরের লক্ষ্য কি?
সালাহ: আমি মনে করি আমরা ভালো একটি দল এবং আমাদের রয়েছে হেক্টর কুপারের মতো সেরা কোচ। আমরা এবারের আসরে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলতে চাই। আর সমর্থকদের সেরা খেলা উপহার দিতে চাই।
প্রশ্ন: বিশ্বকাপে আপনার ব্যক্তিগত লক্ষ্য কি?
সালাহ: দলকে জয়ে সহায়তা করা এবং গোল করা। কিন্তু সবচেয়ে বেশি চেষ্টা করবো দলকে পরবর্তী রাউন্ডে নিয়ে যেতে।
প্রশ্ন: আপনার দলের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক কোনটি বলে মনে করেন?
সালাহ: এটা বলা খুব কঠিন, আমাদের দলের সবচেয়ে বড় শক্তি হচ্ছে আমরা সবাই দলগত এবং একতাবদ্ধ। আমরা দলগতভাবে অনেক শক্তিশালী। আর আমাদের সবার লক্ষ্যও এক। সেটা হলো দলের জয়ের জন্য নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দেয়া। কিন্তু আমি বলতে পারবো না যে আমাদের কোন দিকটা সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী। তবে এটা বলতে পারি যে দলগতভাবে আমরা যে কোনো দলের জন্য কঠিন প্রতিপক্ষ।
প্রশ্ন: বিশ্বকাপে খেলা নিয়ে সমর্থকদের কাছ থেকে কি কোনো চাপ অনুভব করছেন?
সালাহ: বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে পারাটাই ছিলো আমার জন্য সবচেয়ে বড় চাপ। অবশ্যই অনেকই বলতে পারেন যে আমরা বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করেছি এটাই যথেষ্ট। কিন্তু আমি মনে করি এটা আমার জন্য যথেষ্ট নয়। আমরা ইতিহাস সৃষ্টি করতে চাই এবং অনন্য কিছু অর্জন করতে চাই। আমার মাথায় চাপ একটাই যে, এমন কিছু অর্জন করতে চাই যেটা আগের সব অর্জনকে ছাড়িয়ে যাবে।
প্রশ্ন: গ্রুপ পর্বে স্পেনের বিপক্ষে ম্যাচকে কিভাবে নিচ্ছেন?
সালাহ: গ্রুপ পর্বে স্পেন এবং পর্তুগালের মতো শক্তিশালী দুই দলের মুখোমুখি হবো আমরা। তারা খুবই ভালো দল এবং তাদের বিপক্ষে খেলাটা সত্যিই কঠিন হবে। কিন্তু মাঠের ফলাফল কি হবে সেটা কেউই বলতে পারবে না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর