× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার

উড়ন্ত জয়ে প্রস্তুতি সারলো ব্রাজিল

ফিফা বিশ্বকাপ-২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক | ১২ জুন ২০১৮, মঙ্গলবার, ১০:১৮

বিশ্বকাপের আগে নিজেদের শেষ প্রীতি ম্যাচে উড়ন্ত জয় নিয়ে প্রস্তুতি সারলো ব্রাজিল। রোববার অস্ট্রিয়াকে ৩-০ গোলে হারায় তারা। এদিন দলের হয়ে একটি করে গোল করেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস, নেইমার ও ফিলিপ্পে কুটিনহো। গত বছরের জুনের পর থেকে টানা ১০ ম্যাচে অপরাজিত রইলো সেলেকাওরা। আর ২০১৬’র জুনের পর থেকে ২১ ম্যাচে ক্লিন শিট থাকলো কোচ লিওনার্দো বাচ্চি তিতের দল। গত ম্যাচে ক্রোয়েশিয়াকে ২-০ গোলে হারায় ব্রাজিল। অন্যদিকে টানা সাত ম্যাচে অপরাজিত থাকার পর হার দেখলো অস্ট্রিয়া। গত ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে ২-১ গোলে হারায় ইউরোপের এ দেশটি।
এবারের আসরে ‘ই’-গ্রুপে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ কোস্টারিকা ও সার্বিয়া। আগামী ১৭ই জুন সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে ব্রাজিল। অন্যদিকে এবারের আসরের মূল পর্বে জায়গা পেতে ব্যর্থ হয় অস্ট্রিয়া। সর্বশেষ ১৯৯৮’র বিশ্বকাপে অংশ নেয় তারা।  রোববার অস্ট্রিয়ার মাঠে নেইমারকে নিয়ে দলের প্রথম একাদশ সাজান কোচ তিতে। ম্যাচের প্রথম ২০ মিনিট অতিথিদের কিছুটা চাপে রাখে অস্ট্রিয়া। পরে ম্যাচের ৩৬তম মিনিটে ডি-বক্সের ভিতর থেকে কোনাকুনি শটে গোল করে ব্রাজিলকে এগিয়ে দেন ম্যানচেস্টার সিটির ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুস। ৬৩তম মিনিটে উইলিয়ানের পাসে গোল করে দলের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার। দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে থাকার পর এ নিয়ে টানা দুই ম্যাচে গোল করলেন এ পিএসজি ফরোয়ার্ড। গত ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে বদলি হিসেবে মাঠে নেমেই গোল করেন নেইমার। এর ৬ মিনিট পর রবার্তো ফিরমিনোর পাসে দলের শেষ গোলটি করেন বার্সেলোনা মিডফিল্ডার ফিলিপ্পে কুটিনহো। ৭৪তম মিনিটে কুটিনহোর শট গোলেপোস্টে লাগলে নিশ্চিত গোল বঞ্চিত হয় সেলেকাওরা। বিশ্বকাপের ইতিহাসে একমাত্র দল হিসেবে সবক’টি আসরে অংশ নেয় ব্রাজিল। ১৯৩০’র প্রথম আসরে গ্রুপ পর্বেই বিদায় নেয় তারা। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বাধিক পাঁচবারের শিরোপা জয়ের কৃতিত্ব রয়েছে ব্রাজিলের। ১৯৯৮-এ সুইডেনে অনুষ্ঠিত আসরে সর্বপ্রথম শিরোপা জেতে তারা। এর পরে ১৯৬২, ১৯৭০, ১৯৯৪ সর্বশেষ ২০০২-এ কোয়িয়া-জাপান আসরে শিরোপা ঘরে তুলে লাতিন আমেরিকার এ দেশটি। সর্বশেষ ২০১৪-তে নিজ দেশে আয়োজিত আসরের কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে হেরে বিদায় নেয় তারা। গত বছরের বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে লাতিন আমেরিকা অঞ্চল থেকে সবার আগে মূল পর্বের টিকিট নিশ্চিত করে ব্রাজিল।
রোমারিওকে স্পর্শ
করলেন নেইমার
ইনজুরি কাটিয়ে মাঠে ফিরে টানা দুই ম্যাচে ব্রাজিলের হয়ে দুই গোল করেন নেইমার। শনিবার অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে এক গোল করে নতুন এক কীর্তি গড়লেন এ ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার। ব্রজিলের হয়ে তৃতীয় সর্বাধিক ৫৫ গোল করা রোমরিওকে স্পর্শ করেন নেইমার। এদিন ভিয়েনায় অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে ৬৩ মিনিটে সেলেকাওদের হয়ে একটি গোল করেন নেইমার। ব্রাজিলের হয়ে নেইমার ও রোমারিওর চেয়ে গোল সংখ্যায় এগিয়ে দুই কিংবদন্তি পেলে এবং রোনাল্ডো ডি লিমা। ফুটবলের কালো মানিক খ্যাত পেলে দেশের হয়ে ৯২ ম্যাচে গোল করেছেন সর্বোচ্চ ৭৭টি। রোনাল্ডোর ৯৮ ম্যাচে গোল সংখ্যা ৬২টি। নেইমার রোমারিওকে স্পর্শ করতে দেশের হয়ে ৮৫ ম্যাচ খেলেন। রোমারিও অবশ্য ৭০ ম্যাচে ৫৫ গোলের কীর্তি গড়েছিলেন। তবে ম্যাচ বেশি লাগলেও রোমারিও’র মতোই রোনাল্ডো ও পেলেকে ছাড়িয়ে যাওয়া অসম্ভব কিছু নয় নেইমারের জন্য। এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের নিয়ে আত্মবিশ্বাসটা বেশিই থাকছে ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারের। রাশিয়ায় যাওয়ার আগে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচের পর নেইমার বলেন, আপনি আমাদের উপর বিশ্বাস রাখতে পারেন এবং স্বপ্নও দেখতে পারেন। আশা করছি আপনাদের সবার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবো। শেষ প্রস্তুতি হিসেবে অস্ট্রিয়ার বিপক্ষেও বড় জয়ে আত্মবিশ্বাসী ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড কুটিনহো। তিনি বলেন, ম্যাচটি আমাদের জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আমরা ভালো খেলেছি এবং ভালভাবেই জিতেছি। এটাই আত্মবিশ্বাস বাড়াবে। আমি সবসময় চেষ্টা করি কোচের যখন, যেভাবে আমাকে দরকার পড়বে সেখানেই নিজের সেরাটা উজাড় করে দেয়ার। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে দাপুটে জয়ের পর দলের সেরা তারকা নেইমারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ব্রাজিল কোচ লিওনার্দো বাচ্চি তিতে। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, সে যে কতদুর যাবে তা কেউ বলতে পারবে না। এমনকি আমিও জানি না, নেইমারের সীমাটা কোথায়। তার কৌশল এবং সৃষ্টিশীলতা মুগ্ধকর। যখন আমরা তাকে ম্যাচে শেষ তৃতীয়াংশে তুলে নিলাম, তার আগ পর্যন্ত সে ছিল প্রতিপক্ষের জন্য ভয়ঙ্কর। অস্ট্রিয়ার ফুটবলারদের শক্তিনির্ভর ফুটবলের কড়া সমালোচনা করে তিতে বলেন, বিশ্বকাপের আগে এমন জয় আমাদের অনেক প্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। অস্ট্রিয়া সম্প্রতি খুব ভালো খেলছে। গত ম্যাচে তারা জার্মানির মতো দলকে হারিয়েছে। তবে আমরা অনেক শারীরিক শক্তি নির্ভর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিলাম। তবে সবশেষে দারুণ পারফর্ম করেছি আমরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর