ঢাকা, ২৩ জুন ২০১৮, শনিবার

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৭ কিলোমিটার যানজট, চাপ বাড়ছে পাটুরিয়া ফেরি ঘাটেও

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জুন ২০১৮, বুধবার, ১:০০

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া অংশের ঢাকামুখী মেঘনা সেতু থেকে ভাটেরচর এলাকা পর্যন্ত সাত কিলোমিটার এবং কুমিল্লাগামী ভবেরচর থেকে দাউদকান্দি পর্যন্ত ছয় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে। আজ বুধবার সকাল থেকে গাড়ির চাপ বেশি থাকায় এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকামুখী সড়কে যানজটের তীব্রতা বেশি থাকায় অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে এই সড়কটি।
এদিকে পাটুরিয়া ঘাটেও আজ থেকে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়তে শুরু করেছে। ঈদে ঘরমুখো যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়তে শুরু করেছে পাটুরিয়া ফেরি ঘাটে। বেলা বাড়ার সাথে যাত্রীবাহী বাসের চাপ বেড়ে গেছে। নির্বিঘ্নে যানবাহন ও যাত্রী পারাপারের জন্য  আজ থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে ট্রাক পারাপার। ফলে টার্মিনালে আটকে রয়েছে শতাধিক মালবাহী ট্রাক।
বিআইডাব্লিউটিসির কর্তপক্ষ জানান, যানবাহন ও যাত্রী নির্বিঘ্নে পারাপারের জন্য ফেরি সংখ্যা বাড়িয়ে ১৯টি করা হয়েছে। আগামীকাল আরো একটি ফেরি যুক্ত হবে ফেরি বহরে। ঘাট এলাকায় প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসের চাপ রয়েছে সবচেয়ে বেশী । কর্তৃপক্ষ ছোট যানবাহনের জন্য আলাদা একটি লেন করে দিয়েছে।
এদিকে আজ বেলা বাড়ার সাথে সাথে যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকায় যাত্রী দুর্ভোগও বেড়েছে। বাসের লাইন ঘাট ছাড়িয়ে গেছে প্রায় ২ কিলোমিটার পর্যন্ত। প্রতিটি যানবাহনকে ফেরি পার হতে ঘাট এলাকায় কমপক্ষে ঘন্টা খানেক অপেক্ষা করতে হচ্ছে।
বিআইডাব্লিউটিসির আরিচা সেক্টরের এজিএম জিল্লুর রহমান জানিয়েছেন, যানবাহন ও যাত্রী পারাপারের জন্য পর্যাপ্ত ফেরি রয়েছে। ঘাট গুলো স্বচল রয়েছে। পাটুরিয়ায় মোট চারটি ঘাটের মধ্যে ৫ নম্বর ঘাট দিয়ে শুধু মাত্র ছোট গাড়ি পারাপার করা হচ্ছে।  প্রাকৃতিক  দুর্যোগ না ঘটলে  ঈদে ঘরমুখো যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে কোন সমস্যা হবে না।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।