× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা দাবি করেছে এসোসিয়েশন অব পোস্ট গ্রাজুয়েট ডক্টরস

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জুন ২০১৮, বুধবার, ৪:১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানিয়েছে এসোসিয়েশন অব পোস্ট গ্রাজুয়েট ডক্টরস। আজ বুধবার সংগঠনের সমন্বয়ক ডা. একেএম মহিউদ্দিন ভূঁইয়া মাসুম এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান। বিবৃতিতে বলা হয়, বানোয়াট মামলায় সাজানো রায়ের মাধ্যমে নির্জন কারগারে অন্তরীণ রেখে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে তার ইচ্ছা অনুযায়ী ন্যূনতম চিকিৎসা সেবা না দিয়ে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। একজন সাধারণ নাগরিক যে ন্যূনতম চিকিৎসা সুবিধা পান তাও তিনি পাচ্ছেন না। শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে সরকার তাকে কারাঅন্তরীণ করে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। বিএসএমএমইউ, ঢাকা মেডিকেল ও সিএমএইচ-এ তার চিকিৎসার কথা বলে জাতিকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। তিনি তার ইচ্ছানুযায়ী যেকোনো হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেয়ার অধিকার রাখেন। এ সরকারের অনেক নেতা ১/১১ এর সময় স্কয়ার, ল্যাব এইড এবং বারডেম হাসপাতালে নিজ ইচ্ছানুযায়ী চিকিৎসা সেবা নিয়েছেন।
অথচ সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বেলায় বিভিন্ন বিধির কথা বলা হচ্ছে। তখন এরা কোন বিধিতে প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। বর্তমানেও অনেক কারাবন্দি নিজ ইচ্ছা অনুযায়ী বারডেমসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
খালেদা ডায়েবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ নানা রোগে আক্রান্ত। গত ৫ই জুন তিনি মাইল্ড স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। যা চিকিৎসা বিজ্ঞানে টিআইএ নামে পরিচিত। এর ফলে যে কোনো সময় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। একাকী নির্জন কারাগারে ঘন ঘন লোডশেডিং করিয়ে তার স্বাস্থ্য আরো খারাপ করে দেয়া হচ্ছে। যার ফলে তিনি যেকোনো সময় প্রিজনার সাইকোসিসে আক্রান্ত হতে পারেন। এর ফলে তিনি মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলতে পারেন। খালেদা জিয়াকে ন্যূনতম চিকিৎসা সেবা না দিয়ে সরকার কি করতে চায় তা জাতির কাছে পরিস্কার। আমরা খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি। একই সঙ্গে তার ইচ্ছা অনুযায়ী সুচিকিৎসার দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় খালেদা জিয়ার কিছু হইলে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায় নিতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর