ঢাকা, ২৩ জুন ২০১৮, শনিবার

এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১০:১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা কোন হাসপাতালে হবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের সম্মতি না পাওয়ায় এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া যায়নি। এদিকে খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়ার বিষয়ে তার ছোট ভাই শামীম এস্কানদারের আবেদনের বিষয়েও কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। বুধবার বিকালে রাজধানীর তেজগাঁও সরকারি বিজ্ঞান কলেজের এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানান, বিএনপি চেয়ারপারসনের সম্মতি না পাওয়ায় কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছা যায়নি। তার সম্মতি পাওয়া গেলে কারা কর্তৃপক্ষের দেয়া অপশনগুলোতে চিকিৎসা দেয়া হবে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে সর্বশেষ কী সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান বলেন, দেখুন আমরা কী করতে যাচ্ছি। খালেদা জিয়াকে যারা চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন, যাদের চিকিৎসা তিনি নেন, সেই বিশেষজ্ঞ চারজনকে আমরা নিয়ে গিয়েছিলাম, সেটা আপনারা জানেন। আমাদের সিভিল সার্জন, কারাগারের ডাক্তার সবাই একসঙ্গে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন। তাদের সেই প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী আবার তার পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আমরা তাদের জানিয়ে দিয়েছি। আমরা কোথায় নিয়ে যাবো। এখন তিনি যদি সম্মতি প্রকাশ করেন, তাহলেই আমরা সেই ব্যবস্থা করবো। আইজি প্রিজনস কিছুক্ষণ আগে (বুধবার বিকালে) জানিয়েছেন খালেদা জিয়া এখনও কোনো সম্মতি দেননি। আমরা আশা করি, যেকোনো সময়ে তিনি সম্মতি প্রকাশ করবেন। তখনই আমরা আমাদের যে অপশনগুলো ছিল, সেসব অপশনে নিয়ে যাবো। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. জাহাঙ্গীর কবির মানজমিনকে বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা কোন হাসপাতালে হবে সে বিষয়ে এখন পর্যন্ত আমরা কোনো নির্দেশনা পাইনি। উচ্চপর্যায়ের সিদ্ধান্ত পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া এমন অসুস্থ নন যে, তার জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন আছে। জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন থাকলে তো তাকে জরুরিভাবে চিকিৎসা দেয়া হবে। সেজন্য এত অনুমতিরও প্রয়োজন নেই। সঙ্গে সঙ্গে আমরা দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাব। এখন তার সঙ্গে সার্বক্ষণিক একজন চিকিৎসক ও একজন নারী ফার্মাসিস্ট রয়েছেন। তারা তার স্বাস্থ্যের দেখভাল করছেন। প্রয়োজন হলে চিকিৎসা দিচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া সুস্থ আছেন। এ পর্যন্ত খালেদা জিয়া সব রোজা রেখেছেন বলেও জানান জেল সুপার।
গত ৫ই জুন কারাগারে পড়ে গিয়ে খালেদা জিয়া সংজ্ঞা হারান বলে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। এরপরই তাকে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার দাবি করেন বিএনপি নেতারা। সরকারের তরফে বলা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে তার প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। তবে এ হাসপাতালে চিকিৎসায় সম্মতি দেননি খালেদা জিয়া। তিনি বেসরকারি ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আগ্রহী। বিএসএমএমইউতে রাজি না হওয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার বিকল্প প্রস্তাবের কথা জানান।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।


Siddique

১৩ জুন ২০১৮, বুধবার, ১১:২১

Hai Allah every body is a doctor.lastly jail super o....May Allah save Madam Zia....

সাখাওয়াত

১৩ জুন ২০১৮, বুধবার, ১২:২৮

মন্ত্রী এমপি সাহেরা কি সরকারি হাসপাতালে চিকিত্সা নেন খুব জানতে ইচ্ছে করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় কোন হাসপাতালে চিকিৎসা নেন