ঢাকা, ১৯ আগস্ট ২০১৮, রোববার
শাহাবাজের টুইট

ট্রাম্প-কিমের পথেই হাঁটুক ভারত-পাকিস্তান

| ১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১:১৮

‘রাজনীতিতে কেউই চিরকালীন শত্রু বা মিত্র নয়’ জাতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটে একথা  খুবই পরিচিত৷ আন্তর্জাতিক রাজনীতির ময়দানেও একথার গুরুত্ব বা মাহাত্ম্য কিছু কম নয়৷ দীর্ঘ কয়েক দশকের শত্রুতা ভেঙে এক মঞ্চে এসেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার সর্বাধিনায়ক কিম জং উন৷ তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের আশঙ্কা ভেস্তে দিয়ে, করমর্দন করেছেন, পরমাণু অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধে লক্ষ্যনীয় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা৷ আর এই বৈঠকই তৈরি করেছে অন্য জল্পনা৷ যা উসকে দিয়েছেন প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই তথা পাকিস্তানের অন্যতম রাজনৈতিক নেতা শাহাবাজ শরিফ৷ ট্রাম্প-কিম ঐতিহাসিক বৈঠকের পরেই তিনি জানান, এভাবেই আলোচনার টেবিলে বসা উচিত ভারত ও পাকিস্তানের৷আমেরিকা-উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ভারত-পাকিস্তানের তুলনা টেনে টুইটারে শাহাবাজ  লেখেন, দীর্ঘদিনের শত্রুতা মিটিয়ে, পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের পথ থেকে সরে এসেছে আমেরিকা-উত্তর কোরিয়া৷ কাছাকাছি এসেছে তারা৷ তবে ভারত-পাকিস্তান নয় কেন? পাকিস্তান মুসলিম লিগের শীর্ষ নেতার মুখে ভারত-পাক শান্তি বৈঠকের কথা শুনেই জল্পনা শুরু হয়েছে নানা মহলে৷আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, কোনও রকম শান্তি প্রক্রিয়া শুরুর আগে পাকিস্তানকে সরে আসতে হবে সীমান্তে উত্তেজনা সৃষ্টির পথ থেকে৷প্রসঙ্গত, রমজান উপলক্ষে আগেই উপত্যকায় শর্তসাপেক্ষে সেনা অভিযান বন্ধের কথা ঘোষণা করেছিল কেন্দ্র৷ কিন্তু সীমান্তের ওপার থেকে প্ররোচনামূলক কাজ চলছেই৷জঙ্গি অনুপ্রবেশে মদত দেওয়া, যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন, এসব নিত্তনৈমিত্তিক ঘটনা৷ প্ররোচনার জবাব দিতে হচ্ছে ভারতকেও৷ আর  এই লড়াইয়ে সীমান্ত লাগোয়া ভারতীয় গ্রামগুলি ক্রমাগত ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়ছে৷ বেঘোরে প্রাণ যাচ্ছে নিরীহ নাগরিকদের৷ বাদ যাচ্ছে না ৬ মাসের শিশুও৷ কিন্তু পাক সেনার এহেন কার্যকলাপের কথা তাঁর টুইটে উল্লেখ করেননি পাকিস্তান মুসলিম লিগ নেতা শাহাবাজ শরিফ৷

সূত্রঃ সংবাদ প্রতিদিন

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।


Liakat

১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:৪৯

murkho bomb cara togo ki ace