ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রিভিউ

বেলজিয়ামের বিপক্ষে জাপানের ‘হাতছানি’

স্পোর্টস ডেস্ক | ২ জুলাই ২০১৮, সোমবার, ১০:১০

দারুণ ছন্দে থাকা বেলজিয়ামের বিপক্ষে আজ অগ্নিপরীক্ষায় নামছে জাপান। নীল সামুরাইদের সামনে বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথমবার কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার চ্যালেঞ্জ। রোস্তভ অ্যারেনায় রাত ১২টায় দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দল। বিশ্বকাপে এর আগে একবারই মুখোমুখি হয় জাপান ও বেলজিয়াম। ঘরের মাটিতে ২০০২ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের খেলায় বেলজিয়ামের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে জাপান। সব মিলিয়ে পাঁচবারের দেখায় এগিয়ে সুর্যোদয়ের দেশ জাপান। জাপানের দুই জয়ের বিপরীতে এক ম্যাচে জয় পায় বেলজিয়াম। দুই ম্যাচ ড্র হয়। সবশেষ গত বছরের নভেম্বরে বেলজিয়ামের মাটিতে প্রীতি ম্যাচে ১-০ গোলে হার দেখে জাপান। কাগজে-কলমে পরিষ্কার ফেভারিট বেলজিয়াম। এবার গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচেই জয় পাওয়া তিন দলের একটি বেলজিয়াম। ভিন্ন গ্রুপে শতভাগ জয় নিয়ে নকআউট পর্বে ওঠে উরুগুয়ে ও ক্রোয়েশিয়া। টুর্নামেন্টে সবচেয়ে আক্রমণাত্মক দল বেলজিয়াম। গ্রুপ পর্বে সর্বোচ্চ ৯ গোল করে তারা। অন্যদিকে ভাগ্যের ছোঁয়ায় গ্রুপ পর্বের বাধা পার করে জাপান। সেনেগালের সমান পয়েন্ট ও গোল ব্যবধান হওয়ায় ফেয়ার-প্লে পয়েন্টের সুবিধায় শেষ ষোলোর টিকিট কাটে জাপানিজরা। বেশি হলুদ কার্ড দেখায় বিদায় নেয় সেনেগাল। শেষ ম্যাচে পোল্যান্ডের বিপক্ষে ১-০ গোলে জাপান ও সেনেগালকে সমান ব্যবধানে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় কলম্বিয়া। পোল্যান্ড ম্যাচের শেষদিকে সময় নষ্ট করার কৌশল নিয়ে খেলা শেষ করে জাপান। এতে গ্যালারিতে ওঠে দুয়োধ্বনি। পরে অবশ্য এর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন জাপানের নতুন কোচ আকিরা নিশিনো। বেলজিয়ামের বিপক্ষে আরো ভালো পারফরম্যান্সের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। নিশিনো বলেন, ‘পোল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ১০ মিনিটে সমর্থকদের আচরণ কিছুটা বদলে যায়। স্বাভাবিক খেলার বাইরে যাওয়ায় এমনটি হয়। আমি ভক্ত-সমর্থকদের এটি ফিরিয়ে দিতে চাই।’ জাপান চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আত্মবিশ্বাসী বেলজিয়ামের স্প্যানিয়ার্ড কোচ রবার্তো মার্টিনেজ। তিনি বলেন, ‘জাপান ম্যাচ সামনে রেখে খেলোয়াড়দের মানসিকতা খুবই ইতিবাচক। আমাদের নিজেদের ওপর বিশ্বাসটা রয়েছে। কোনো ভুল করা যাবে না। আমরা নিজেদের খেলার সামর্থ্যটাই প্রদর্শন করতে যাচ্ছি।’ একটি হলুদ কার্ড নিয়ে বেলজিয়ামের পাঁচ খেলোয়াড় আছেন নিষেধাজ্ঞার ঝুঁকিতে। এর মধ্যে অন্যতম উইঙ্গার কেভিন ডি ব্রুইনা ও ডিফেন্ডার ইয়ান ভার্টংগেন। অন্যদিকে জাপানের অধিনায়ক মাকোতো হাসেবেসহ চারজন হলুদ কার্ডের কবলে পড়েন। ডি ব্রুইনা, ইডেন হ্যাজার্ড, রোমেলু লুকাকু, ড্রায়াস মার্টেন্স ও অ্যাক্সেল উইটসেলরা ফিরছেন একাদশে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১-০ গোলে জেতা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ম্যাচে সবাইকে বিশ্রামে রাখেন মার্টিনেজ। গোড়ালির ইনজুরি কাটিয়ে শতভাগ ফিট দুই ম্যাচে চার গোল করা লুকাকু। ইংল্যান্ড ম্যাচে মোট ৯টি পরিবর্তন আনেন বেলজিয়ান কোচ। ইংলিশ কোচ গ্যারেথ সাউথগেট ৮টি পরিবর্তন আনেন। যেকোনো ধরনের ফুটবলে এক ম্যাচে এটাই একাদশে সবচেয়ে বেশি পরিবর্তনের রেকর্ড। গ্রুপ পর্বে জাপানের চার গোলদাতা শিনজি কাগাওয়া, ইউইয়া ওসাকা, তাকাশি ইনুয়ি ও কেইসুকে হোন্ডা। পোল্যান্ডের বিপক্ষে প্রত্যেকেই থাকেন বদলি খেলোয়াড় তালিকায়। বেলজিয়ামের বিপক্ষে একাদশে ফিরতে পারেন প্রথম তিনজন। কিন্তু হোন্ডার সম্ভাবনা কম। চলতি আসরে মাত্র ৩৮ মিনিট খেলেছেন এই অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার। নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে দুইবার শেষ ষোলো অতিক্রম করে বেলজিয়াম। টানা দুই আসরে বাছাইপর্বে বাদ পড়ার পর ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে তারা। আর ১৯৮৬ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে দিয়েগো ম্যারাডোনার কাছে হার দেখে বেলজিয়াম। এ নিয়ে তৃতীয়বার দ্বিতীয় রাউন্ডে উত্তীর্ণ হয় জাপান।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।