ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার

গোলরক্ষকদের আলোকিত এক রাত

স্পোর্টস ডেস্ক | ৩ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার, ১০:০৪

পেনাল্টি শুটআউট, দর্শকরা ধরেই নেন গোল হওয়ার সম্ভাবনা ৯০-৯৫ ভাগ। ভালো গোলরক্ষকেরও কিছু করার থাকে না, যদি সঠিক জায়গায় শটটি নিতে পারেন শুটাররা। ভাগ্যের একটা ব্যাপার আছে। তবে বুদ্ধিমত্তাকেও আপনি একেবারে অগ্রাহ্য করতে পারবেন না। অনেক সময় খেলোয়াড়ের চেহারা দেখে গোলরক্ষক আন্দাজ করে ফেলেন, কোনদিকে শটটা আসতে পারে। আবার অনেক সময় শুটারকে নার্ভাসও করে ফেলেন তারা। যার ফলশ্রুতিতে সহজ সুযোগও নষ্ট করে ফেলেন কেউ কেউ। তবে রাশিয়া বিশ্বকাপে রোববার দিনটি ছিল গোলরক্ষকদের। এদিন শেষ ষোলো রাউন্ডের দুই ম্যাচই নিষ্পত্তি হয় পেনাল্টি শুটআউটে। আর এদিন দুই ম্যাচে তিন দলের গোলরক্ষক ঠেকিয়ে দেন আটটি স্পট কিক। দিনের প্রথম ম্যাচে স্পেনের সঙ্গে ১২০ মিনিটের খেলায় ১-১ সমতা শেষে টাইব্রেকারে (৪-৩) জয় দেখে স্বাগতিক রাশিয়া। শুটআউটে স্পেনের কোকে ও ইয়াগো আসপাসের শট ঠেকিয়ে দেন রাশিয়ার গোলরক্ষক ইগর আকিনফিয়েভ। অপর ম্যাচে ১-১ সমতায় ১২০ মিনিটের খেল শেষ করে ডেনমার্ক-ক্রোয়েশিয়া। পেনাল্টি শুটআউটে দু’দলের গোলরক্ষকেরা রুখে দেন পাঁচটি শট। ক্রোয়াট গোলরক্ষক সুভেসিচের সেভ ছিল তিনটি। দুই শট সেভ করেন ডেনমার্কের গোলরক্ষক ক্যাসপার স্মাইকেল। ম্যাচটি টাইব্রেকারে নাও গড়াতে পারতো। অতিরিক্ত সময়ের ২৬তম মিনিটে পেনাল্টি মিস করেন ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক লুকা মদরিচ। রিয়াল মাদ্রিদের এ মিডফিল্ডারের শট রুখে দেন ডেনিশ গোলরক্ষক ক্যাসপার স্মাইকেল। তবে শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে ৩-২ ব্যবধানে জয় নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট কাটে ক্রোয়েশিয়াই।

ডেনমার্কের বিপক্ষে টাইব্রেকারে অ্যাকশনে ক্রোয়াট গোলরক্ষক সুবাসিচ

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।