× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার

নিজেদেরই এগিয়ে রাখলেন তিতে

রাশিয়া থেকে

স্পোর্টস রিপোর্টার, সামারা (রাশিয়া) থেকে | ৪ জুলাই ২০১৮, বুধবার, ৯:০০

এমনিতে আড্ডা প্রিয় তিতে, তার ওপর মেক্সিকোকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে তার শিষ্যরা। স্বাভাবিকভাবে ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অনেক সময় দেবেন এই ব্রাজিলিয়ান কোচ। হয়েছোও তাই। ম্যারাথন সংবাদ সম্মেলনে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তিতে সবার প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। সামারার সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন নেইমারও। তবে মাত্র তিনটি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে কক্ষ ত্যাগ করেন ব্রাজিলের জয়ের নায়ক। তিতে ব্যাখ্যা করেন প্রথমার্ধে কেন তার দল পারফর্ম করতে পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধে কিসের টনিকে ঘুরে দাঁড়ালো ব্রাজিল। এসব নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি নিজের দলকে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে রাখছেন এই ব্রাজিল কোচ।
বিশ্বকাপের শুরু থেকেই নেইমারকে নিয়ে সমালোচনা ছিল। নেইমারের অতি আবেগ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিল বিশ্ব মিডিয়া। অধিনায়ক থিয়াগো সিলভার সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে সংবাদের শিরোনামও হয়েছিলেন এই পিএসজি তারকা। সামারা অ্যারিনায় এসব সমালোচনার জবাব দিতেই মনে হয় মাঠে নেমেছিলেন নেইমার। সাম্বার তালে তালে পুরো দলকে খেলিয়েছেন ২৬ বছর বয়সী এই তারকা ফুটবলার। নিজে গোল করেছেন, করিয়েছেন রবার্তো ফিরমিনোকে দিয়ে। তার অনবদ্য নৈপুণ্যে মেক্সিকোকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। এরপরেও সমালোচনা পিছু ছাড়ে না নেইমারকে। এই যেমন ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে মেক্সিকোর কোচ হুয়ান কালোর্স নেইমারের অতি অভিনয়ের সমালোচনা করে বলেন, তার মতো ফুটবলের মাঠে পড়ে যাওয়ার অভিনয় ফুটবলের জন্য খারাপ। এখনও নেইমারের অতি অভিনয়ের ব্যাপারে রেফারিদের কঠোর হওয়া উচিত। মেক্সিকো কোচের এমন সমালোচনার জবাবে নেইমার বলেন, এসব নিয়ে আমার মাথাব্যথ্যা নেই। আমি সব সময় যেমন খেলি, আজও তেমন খেলতে চেষ্টা করেছি। আজ ক্লিক করেছে। তাই গোল পেয়েছি। এসব আলোচনা সমালোচনার দিকে তাকিয়ে থাকলে আমি আমার স্বাভাবিক খেলাটাই খেলতে পারবো না। তিতেও নেইমারের কথার সঙ্গে সুর মিলিয়ে বলেন, নেইমার দলের অন্যতম সেরা পারফরমার। হয়তো সার্বিয়ার বিপক্ষে গোল পায়নি কিন্তু ভালো খেলেছে। আসলে আমার দল ব্যক্তিগতভাবে কারো ওপর নির্ভরশীল নয়। প্রথমার্ধের খেলা নিয়ে তিতে বলেন, সত্যি বলতে কি আমরা প্রথমার্ধে ওদের কৌশল বুঝে উঠতে পারিনি। দ্বিতীয়ার্ধে যখন মাঝখানে উইলিয়ানকে রেখে দিয়ে দুই দিকে নেইমার ও জেসুসকে দিয়ে খেলাতে শুরু করলাম। এতেই সফলতা এসেছে। নেইমারতো দারুণ খেলেছে। বিশেষ করে প্রথম গোলটি ছিল অসাধারণ। দ্বিতীয় গোলে ওর পাশাপাশি ফিরমিনোকেও কৃতিত্ব দিবো। ও যেভাবে মাঠে নেমে সেট হয়ে গোল করেছে তা দারুণ।     
গ্যাব্রিয়েল জেসুসের জন্য ব্রাজিলের একাদশে সুযোগ মিলছে না রবার্তো ফিরমিনোর। অথচ বদলি হিসেবে মাঠে নেমেও জেসুসের চেয়ে ভালো খেলছেন লিভারপুলের এই ফরোয়ার্ড। এ বিশ্বকাপে বদলি হিসেবে নেমে সবচেয়ে দ্রুততম গোল করেছেন রাশিয়ান ফরোয়ার্ড আরতিয়ম জিওবা। সৌদি আরবের বিপক্ষে ৭০ মিনিটে মাঠে নেমেছিলেন। গোলের দেখা পেতে মাত্র ১ মিনিট ২৯ সেকেন্ড সময় নেন। গতকাল একটুর জন্য জিউবাকে ধরতে পারেননি রবার্তো ফিরমিনো। লিভারপুল মিডফিল্ডার মেক্সিকোর বিপক্ষে মাঠে নামেন ৮৬তম মিনিটে। আর নেইমারের পাস যখন তাকে খুঁজে নিল, ম্যাচের বয়স তখন ৮৮। ফিরমিনো গোল সময় নেন ২ মিনিট ৪ সেকেন্ড। ফিরমিনোকে একাদশে দেখা যাবে কিনা জানতে চাইলে সদা হাস্যোজ্জ্বল তিতে হাসতে হাসতে বলেন, ওতো বদলি হিসেবে নেমে ভালো করেছে। ওকে না হয় আগামী ম্যাচেও বদলি হিসেবে নামাবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর