× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২১ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার

ই-পাসপোর্ট ও মেশিন কিনতে লাগছে ৩৩৩৮ কোটি টাকা

শেষের পাতা

বিশেষ প্রতিনিধি | ১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার, ১০:০২

ই-পাসপোর্ট অটোমেটেড বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার আওতায় ৩৩৩৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকার মেশিনপত্র কিনতে যাচ্ছে সরকার। ২ মিলিয়ন  পাসপোর্ট কিনতে এবং ২৮ লাখ পাসপোর্ট বানাতে এসব যন্ত্রপাতি কেনা হবে। ফলে পরবর্তী পাসপোর্ট বই বাংলাদেশেই তৈরি সম্ভব হবে। জি-টু-জি (সরকার টু সরকার) ভিত্তিতে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে এসব পণ্য ও সেবা জার্মানি থেকে কেনা হবে। গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট অটোমেটেড বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ২ মিলিয়ন পাসপোর্ট বুকলেট ক্রয় এবং ২৮ মিলিয়ন পাসপোর্ট তৈরির যাবতীয় উপাদানসহ আনুষঙ্গিক হার্ডওয়ার, সফটওয়্যার ও দশ বছরের রক্ষণাবেক্ষণসহ সব সেবা ক্রয়ের একটি প্রস্তাব কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ৩৩৩৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। এসব পণ্য ও সেবা জি-টু-জি (সরকার টু সরকার) ভিত্তিতে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে জার্মানি থেকে সংগ্রহ করা হবে।
এদিকে যন্ত্রে অপাঠযোগ্য কাগুজে পাসপোর্টের দিন অনেক আগেই শেষ হয়েছে। এখন যন্ত্রে পাঠযোগ্য পাসপোর্টের (মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট-এমআরপি) যুগ চলছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বিশ্বের ১১৮টি দেশে চালু রয়েছে ই-পাসপোর্ট বা ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট। ওই দেশগুলোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশও ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। আর এ কাজে টেকনিক্যাল এবং টেকনোলজিক্যাল দুটি কাজে সহায়তা দেবে জার্মানভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ভেরিডাস জিএমবিএইচ। প্রধানমন্ত্রীর জার্মানি সফরের সময় এ বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। তার আলোকে ই-পাসপোর্ট প্রবর্তনের লক্ষ্যে জার্মানভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ভেরিডাস জিএমবিএইচ-এর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অধীনে বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর কর্তৃক জি-টু-জি (সরকার টু সরকার) পদ্ধতিতে কার্যসম্পাদনের অনুমোদন দেয়া হয়। অর্থাৎ ই-পাসপোর্ট চালুর ক্ষেত্রে জার্মানভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটি আমাদের টেকনিক্যাল এবং টেকনোলজিক্যাল দুটি কাজে সহায়তায় দেবে। বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নিরাপত্তা চিহ্ন হিসেবে ই-পাসপোর্টে থাকবে চোখের মণির ছবি ও আঙুলের ছাপ। আর এর পাতায় থাকা চিপসে সংরক্ষিত থাকবে পাসপোর্টধারীর সব তথ্য। ফলে পরিচয় গোপন করা সম্ভব হবে না। এর আগে ২০১৬ সালে এমআরপির পাশাপাশি ই-পাসপোর্ট চালুর সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। একই সময় পাসপোর্টের মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, যেদিন থেকে ই-পাসপোর্ট চালু হবে সেদিন থেকে এমআরপি পাসপোর্ট রিনিউ করতে গেলে ই-পাসপোর্ট করতে হবে। যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, কানাডাসহ ১১৮টি দেশে ই-পাসপোর্ট চালু আছে। বর্তমানে সাধারণ ও জরুরি পাসপোর্ট করতে যথাক্রমে তিন হাজার ও ছয় হাজার টাকা ফি দিতে হয়, যার মেয়াদ পাঁচ বছর।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর