ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার

রেড স্কয়ারে তারার মেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার, মস্কো (রাশিয়া) থেকে | ১২ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:১৯

সকাল থেকেই মস্কোর রেড স্কয়ারের ফুটবল পার্কে তিল ধারনের জায়গা নেই। সবার অপেক্ষা ফুটবল লিজেন্ড কাফু, ফোরলান, লোথার ম্যাথিউসদের জন্য। এখানেই সিক্স এ সাইড প্রীতি ম্যাচে অংশ নেয়ার কথা দুই বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ব্রাজিলের কাফু ও জার্মানির লোথার ম্যাথিউসের। প্রতিপক্ষ দলে ফোরলান সালগাদোর মতো তারকারা। নির্ধারিত সময়ের আগেই সেখানে হাজির হন তারকারা। তাদের উপস্থিতিতে ফুটবল পার্কে ক্ষণে ক্ষণে মোবাইল, ক্যামেরার ক্লিক। কয়েক মিনিটের প্রীতি খেলা হলেও বেশ উপভোগ্য ছিল। কাফু ম্যাথিউসের সঙ্গে হেডে কয়েকটি পাস করেন। ফোরলানও কম যাননি একক প্রচেষ্টায় দুই-তিনজনকে কাটিয়ে গোল করেন। ফিফা লিজেন্ডের সঙ্গে রাশিয়ান তিনজন ফুটবলারও ছিলেন। এর মধ্যে একজন মহিলা ফুটবলারও ছিলেন।
ম্যাচের পর দর্শক ও গণমাধ্যমকে অবশ্য বেশ সময় দিয়েছেন কাফু, ফোরলান ও ম্যাথিউস। ১৯৯০ সালে জার্মান বিশ্বকাপের অধিনায়ক লোথার ম্যাথিউস গণমাধ্যমে তেমন কথা বলেননি। ভক্তদের আবদার মিটিয়েছেন বেশি। ‘লোথার, লোথার’ বলে কাগজ-কলম এগিয়ে দিলেই অটোগ্রাফ দিয়েছেন। ছবিও তুলেছেন অনেকের সঙ্গে। ২০১০ বিশ্বকাপের সেরা ফুটবলার দিয়েগা ফোরলান। তার দল এবার কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে। গণমাধ্যমের সামনে উরুগুয়ের বিদায় সম্পর্কে বলেন, ‘ফ্রান্স খুবই ভালো দল। ফাইনালে উঠে তারা ইতিমধ্যে সেটা প্রমাণ করেছে। কাভানির অনুপস্থিতি ম্যাচে অনেক প্রভাব ফেলেছে।’
দুই সেমিফাইনাল সম্পর্কে তার মন্তব্য, ‘ফ্রান্স-বেলজিয়াম সেমিফাইনালটি ভালোই হয়েছে। দ্বিতীয় সেমিফাইনালে শারীরিকভাবে ইংল্যান্ড এগিয়ে থাকবে।’ ইংল্যান্ড এগিয়ে থাকার কারণ তার দৃষ্টিতে, ‘ক্রোয়েশিয়া টানা দুইটি ১২০ মিনিটের ম্যাচ খেলেছে। কিছুটা হলেও ক্লান্তি ভর করবে তাদের।’ ব্রাজিলের সর্বশেষ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক কাফু। ২০০২ সালের পর আর কোনো ব্রাজিলিয়ান কাপ উঁচিয়ে ধরতে পারেননি। কাফু পতুর্গীজ ভাষায় উপস্থিত গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন। দোভাষীর মাধ্যমে কাফু ব্রাজিলের বিদায় সম্পর্কে বলেন, ‘বেলজিয়ামের বিপক্ষে ব্রাজিলের হারটা হতাশার। সামগ্রিকভাবে ব্রাজিল ভালোই খেলেছে।’ নেইমারের পারফরম্যান্স নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। ব্রাজিলের এই কিংবদন্তি নেইমারের পক্ষেই রায় দিলেন, ‘নেইমার খুবই প্রতিভাবান ফুটবলার। বিশ্বকাপের কিছুদিন আগেও ইনজুরিতে ছিল। ইনজুরি কাটিয়ে বিশ্বকাপের মতো আসরে সে যথেষ্ট ভালো খেলেছে।’ বিশ্বকাপে চার সেমিফাইনালিস্টই ইউরোপের। লাতিন আমেরিকার কোনো দল নেই। এটাকে অবশ্য তিনি বিশেষভাবে দেখছেন না। সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন সম্পর্কে বলেন, ‘ফ্রান্স, ইংল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া সবারই সমান সম্ভাবনা আছে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার।’ ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তির প্রয়োগকে ভালোই মনে করছেন বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক, ‘এই প্রযুক্তি ও ব্যবস্থার মাধ্যমে রেফারিদের অনেক সিদ্ধান্ত সঠিক হচ্ছে। ভুলের পরিমাণ অনেকটাই কমে যাচ্ছে।’
মস্কোর রেড স্কয়ারে ভক্তদের অটোগ্রাফ দেন জার্মান তারকা লোথার ম্যাথিউস

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।