ঢাকা, ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার

টয়লেট অ্যাপস যুগে বাংলাদেশ

প্রীতম সাহা | ৩ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার, ১০:২০

রাজধানী ঢাকা। এই ব্যস্ত নগরীতে বিভিন্ন প্রয়োজনে সহসাই ঘর থেকে বেরুতে হয় ঢাকাবাসীর। এসব মানুষের টয়লেটের প্রয়োজন ব্যাপক। বিশেষ করে নারীদের জন্য টয়লেটের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। তাই টয়লেটের খোঁজ দিতে চালু হয়েছে ‘ঢাকা পাবলিক টয়লেটস’ অ্যাপ। এখানে মিলবে রাজধানীজুড়ে টয়লেটের সব খবরাখবর। ইতিমধ্যে অ্যাপটি জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড সামিটে ‘স্মার্ট সেটেলমেন্ট অ্যান্ড আরবানাইজেশন’ বিভাগে অর্জন করেছে সেরা অ্যাপের খেতাব। অ্যাপটি তৈরি করেছে প্রেন্যুর ল্যাব নামক প্রতিষ্ঠান। যেখানে যুক্ত করা হয়েছে পাবলিক টয়লেট, মসজিদ, শপিংমল, রেস্টুরেন্ট, হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্থানে প্রায় দুই হাজারটি টয়লেটের সন্ধান। শুধু তাই নয় টয়লেটে ব্রেস্ট ফিডিং, স্যানেটারি ন্যাপকিন প্রাপ্তির স্থান, লেফট লাগেজ, পরিষ্কার পানির সন্ধান, টয়লেট খোলা ও বন্ধের সময়সহ ১৭টি গুরুত্বপূর্ণ ফিচার।

২০১২ সালে এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় ঢাকায় পাবলিক টয়লেট রয়েছে মাত্র ৫৭টি। ২০১৫ সালের শেষের দিকে কাজ শুরু করে প্রেন্যুর ল্যাব। শুরুতে পান বাংলাদেশ সরকারের ‘অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন’ থেকে ইনোভেশন ফান্ড। পরে গ্লোবাল এনজিও ‘ওয়াটার এইড’ এর সঙ্গে পার্টনারশিপে যান। এই অ্যাপে চমকপ্রদ একটি বিষয় হচ্ছে, যে কেউ চাইলে নিজের বাড়ি বা প্রতিষ্ঠানের টয়লেট ‘পাবলিক টয়লেট’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবেন। এর মাধ্যমে সুযোগ থাকছে জনগণের সেবা কিংবা হতে পারে বাড়তি আয়ের উৎস। স্মার্ট ফোন বা নেট কানেকশন না থাকলেও রয়েছে এই অ্যাপ ব্যবহারের সুযোগ। এসএমএস’র মাধ্যমে পরিচয়/টয়লেট/স্থান লিখে ২৭৭৭ নম্বরে পাঠিয়ে দিলে ফিরতি এসএমএসে আসবে নিকটস্থ টয়লেটের ঠিকানা। জনসাধারণের ভোগান্তি কমানোর লক্ষ্যে প্রথমত চট্টগ্রাম, সিলেট শহরে, দ্বিতীয়ত ‘টয়লেটস ডট গ্লোবাল’ নামের প্রজেক্ট সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার স্বপ্নের কথা জানান প্রেন্যুর ল্যাবের প্রধান নির্বাহী আরিফ নিজামী।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।