× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ২২ অক্টোবর ২০১৮, সোমবার

জোরপূর্বক নগ্ন ছবি ধারন, গৃহবধূর আত্মহত্যা

অনলাইন

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি | ৮ আগস্ট ২০১৮, বুধবার, ১:৫১

নাটোরের বড়াইগ্রামে তিন বখাটের নির্যাতনের পর নগ্ন করে ছবি তোলায় লজ্জায় ও অপমানে আত্মহত্যা করেছে খৃস্টান সম্প্রদায়ের এক গৃহবধূ। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের সরাবাড়িয়া গ্রামের ডমিনিক রোজারিও স্ত্রী শিপ্রা কস্তা (৩০)। এর আগে গত ১৭ই জুলাই রাতে ওই গৃহবধূর বাড়িতে স্থানীয় এক দোকানদার পাওনা টাকা আদায়ের জন্য গেলে সংগ্রামপুরের রমজান ফকিরের ছেলে আলম ফকির (২৮), সরাবাড়িয়া গ্রামের মান্নান আলীর ছেলে সবুজ সরকার (৩৩), আনার কুলির ছেলে আবু হানিফ (৩৫) লাঠি-সোঠা নিয়ে তাদের দুজনকে জোর করে ঘরের মধ্যে ঢুকিয়ে আটকে রাখে। তাদের নামে মিথ্যা অপবাদ দেয়। পরে শারিরীক নির্যাতন ও শ্লীলতাহানী চালায়। বখাটেরা এসময় তাদের দুই জনকে জোরপূর্বক নগ্ন করে ছবিও তুলে। ছিনিয়ে নেয় গলায় থাকা একটি স্বর্ণের গলার চেইন, নগদ ১০ হাজার টাকা ও মোবাইল সেট।
পরবর্তীতে শিপ্রা থানা ও ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন জায়গায় এর বিচার চাইলে দীর্ঘদিনেও কোন বিচার না পাওয়ায় এবং বখাটেরা বিভিন্ন জায়গায় নগ্ন ছবি প্রদর্শন করতে থাকায় লজ্জা ও অপমানে অবশেষে আত্মহত্যা করেন শিপ্রা কস্তা। আজ সকালে শিপ্রার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য থানা পুলিশ নাটোর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এদিকে শিপ্রার স্বাক্ষরিত অভিযোগপত্রটি ঘটনার ২১ দিন পর এবং তার আত্মহত্যার পর মঙ্গলবার রাতে নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে।
থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিলিপ কুমার দাস জানান, গৃহবধূ শিপ্রার আত্মহত্যার পেছনে যারা দায়ী তাদেরকে কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। অভিযুক্তদের আটকের জন্য জোর পুলিশী তৎপরতা চালানো হচ্ছে।   

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর