× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার

নড়াইলে মাদরাসা সুপারকে মারধরের অভিযোগ থানায় মামলা

বাংলারজমিন

নড়াইল প্রতিনিধি | ১০ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার, ৯:৩৫

নড়াইলের কালিয়ায় মাদরাসা সুপারকে মারধর করার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। ভুক্তভোগী ও থানা সূত্রে জানা গেছে, মাদরাসার কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে কালিয়া উপজেলার বড়নাল দাখিল মাদরাসার সুপার মাওলানা শফিকুল ইসলামকে (৫১) বেধড়ক মারধর করেছে কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক মল্লিক মানিরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনায় বুধবার দুপুরে শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে কালিয়া থানায় মানিরুল ইসলামসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এছাড়া আরো কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। মাদরাসা সুপার শফিকুল ইসলাম বলেন, নিয়মানুযায়ী গত ২রা আগস্ট কালিয়া উপজেলা ইউএনওকে সভাপতি করে বড়নাল দাখিল মাদরাসা পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু মানিরুল ইসলাম বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি। এরপর থেকে মানিরুল ইসলাম বিভিন্ন হুমকি দিয়ে আসছিল। মানিরুল নিজেই সভাপতি হতে চেয়েছিল।
ইউএনও সভাপতি হওয়ায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। গত মঙ্গলবার দুপুরে মাদরাসায় এসে হুমকি ধামকি দেয়। ওই দিনই রাত সাড়ে ৯টার দিকে মানিরুলসহ তার লোকজন মাদরাসায় এসে রেজুলেশন খাতা পরিবর্তন করে তাকে (মানিরুল) সভাপতি করতে চাপ দেয়। মানিরুল ও তার সঙ্গে থাকা সাইজুর, খাইরুল সহ অন্যরা কিলঘুষি মারতে মারতে টেনেহিঁচড়ে বাইরে নিয়ে যান। এমনকি প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন। গায়ের পোশাক পর্যন্ত ছিঁড়ে ফেলে। রেজুলেশন খাতা ছিঁড়ে ফেলে কালিয়া ইউএনও’র নাম বাদ দিয়ে নতুন করে রেজুলেশন লিখে মানিরুলকে সভাপতি করার জন্য চাপ অব্যাহত রেখেছে। কালিয়া থানার ওসি শেখ শমসের আলী বলেন, এ ঘটনার পর থেকে সুপারসহ মাদরাসার সার্বিক নিরাপত্তার জন্য পুলিশি প্রহরার ব্যবস্থা করা হয়েছে। অভিযুক্ত মানিরুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর