× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, শুক্রবার

খুশিতে আত্মহারা হতে চান না কোচ স্টিভ

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১০ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার, ৯:৫৪

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রধান কোচের দায়িত্বে এটি ছিল তার প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট। তাও ভিনদেশের মাটিতে। তবে টাইগারদের দায়িত্ব নিয়ে প্রথম সফরেই বাজিমাত কোচ স্টিভ রোডসের। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তিন ফরমেটের দুইটির ট্রফি জিতেছে টাইগাররা। এতে সন্তুষ্ট টাইগারদের বৃটিশ কোচ স্টিভ রোডস। তবে খুশিতে আত্মহারা হতে চান না তিনি। গতকাল উইন্ডিজে দলের সামগ্রিক পারফরম্যান্স নিয়ে টাইগারদের প্রধান কোচ স্টিভ রোডস বলেন, ‘টেস্ট সিরিজটা আমাদের জন্য সহজ ছিল না। আমরা টেস্টের পারফরম্যান্সে যথেষ্ট আঘাত পেয়েছি।
তবে খুবই গর্ববোধ করছি দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পেরে। ওয়ানডে সিরিজ জয়ের প্রত্যাশা আমাদের ছিল, আমরা সেটা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি। টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়টা ছিল অবাক করার মতো। আমরা আসলেই অসাধারণ খেলেছি শেষ দুই ম্যাচে। খুবই খুশি দুটি ট্রফি জেতায়। দারুণ চেষ্টা ছিল সবার।’ গত বছর নভেম্বরে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বিদায়ের পর প্রধান কোচ ছাড়াই তিনটি সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ দল। ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ, শ্রীলঙ্কার মাটিতে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টির নিদাহাস ট্রফি ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভারপ্রাপ্ত কোচের অধীনে মাঠে নামে টাইগাররা। আর আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর বাংলাদেশ দলে প্রধান কোচের অনুপস্থিতির বিষয়টি ভালোই আলোচিত হয়। অবশেষে উইন্ডিজ সফরের আগে ইংল্যান্ডের স্টিভ রোডসকে প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের শুরুতে ২-০তে টেস্ট সিরিজ খোয়ায় টাইগাররা। তবে একদিনের সিরিজে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ২-১এ সিরিজ জিতে নেয় মাশরাফিবাহিনী। ওয়ানডে ক্রিকেটে বিদেশের মাটিতে এটি ছিল বাংলাদেশের ৯ বছরে প্রথম সিরিজ জয়। সফরের শেষে সাকিবের নেতৃত্বে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও জয় পায় টাইগাররা। ক্যারিবিয়ান সফরে টেস্ট সিরিজের শুরুতে ৪৩ রানে অলআউটের লজ্জায় ডোবে টাইগাররা। দুই ম্যাচের চার ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল সাকুল্যে ৫০৪ রান। কোনো টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের সবচেয়ে কম রানের রেকর্ড এটি। উইন্ডিজে টেস্টে ভরাডুবি নিয়ে কোচ রোডস বলেন, ‘টেস্ট ম্যাচে আমাদের ব্যাটিংটা বেরিয়ে এসেছে। টেস্টে আমাদের ব্যাটিংয়ে উন্নতি করতে হবে। আমাদের ভালো কিছু খেলোয়াড় আছে। আমাদের শুধু কন্ডিশনের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নিতে হবে ও প্রতিপক্ষ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা রাখতে হবে, বিশেষ করে আমরা যখন দেশের বাইরে খেলবো।’ প্রথম টেস্টের শুরুতে টস হারাটাও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল বলে মনে করেন স্টিভ রোডস। বাংলাদেশ কোচ বলেন, অ্যান্টিগায় প্রথম টেস্টে টসটা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। সুইং, বাড়তি বাউন্স ও সিমিং কন্ডিশনে লাল ডিউক বল হাতে ক্যারিবীয় পেসাররা সুবিধা আদায় করে নেয়। অ্যান্টিগায় এমন কন্ডিশনে যে কোনো ব্যাটিং লাইন আপই ভোগান্তিতে পড়বে। বাংলাদেশ দলের দুই অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রসঙ্গে স্টিভ রোডস বলেন, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে দুই অধিনায়কই বোলিংটার দারুণ ব্যবহার করেছে। আমাদের দলের স্পিন আক্রমণ দারুণ। আর পেস বোলিংটাও স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের চেয়ে কার্যকরী ছিল। টেস্টের জন্য আমাদের দ্রুতগতির ও দীর্ঘদেহী বোলার খুঁজে বের করতে হবে।

কোচ স্টিভ রোডসের পরবর্তী অ্যাসাইনমেন্ট এশিয়া কাপ। ক্যারিবীয় সফর থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে এশিয়া কাপেও দারুণ কিছু করতে চান তিনি। স্টিভ রোডস বলেন, অবশ্যই এটা দলকে আত্মবিশ্বাস জোগাবে (ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়)। জয়ের চেয়ে ভালো কিছু হতে পারে না। এর আগেও ওয়ানডেতে আমরা ভালো খেলেছি। সুতরাং আমরা ইতিবাচক ভাবনায় এশিয়া কাপ খেলতে যাবো। আমরা খুশিতে আত্মহারা হতে চাই না, তবে অবশ্যই সন্তুষ্ট। আমরা ওয়ানডে সিরিজটা ৩-০ ব্যবধানে জিততে পারতাম।

আমরা ইতিবাচক ভাবনায় এশিয়া কাপ খেলতে যাবো। আমরা খুশিতে আত্মহারা হতে চাই না, তবে অবশ্যই সন্তুষ্ট

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর