ঢাকা, ১৫ আগস্ট ২০১৮, বুধবার

অনলাইনে সন্তানকে বিক্রি করলেন মা

| ১০ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার, ৬:১৬

৯ বছরের শিশু সন্তানকে অনলাইনে যৌন নির্যাতনকারীদের কাছে বিক্রি করার দায়ে এক জার্মান নারী ও তার সঙ্গীকে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত৷ তদন্তকারীরা বলছেন, তাঁদের দেখা সবচেয়ে ভয়াবহ শিশু নির্যাতনের ঘটনা এটি৷ বেরিন টি. নামের ৪৮ বছরের ওই নারীকে সাড়ে ১২ বছরের জেল দিয়েছে জার্মানির এক আদালত৷ ৩৯ বছর বয়সি ক্রিশ্চিয়ান এল. নামের সঙ্গীকে দেয়া হয়েছে ১২ বছরের কারাদণ্ড৷ তারা দু'জন মিলে তাদের ৯ বছরের ছেলেকে অর্থের বিনিময়ে অনলাইনেশিশু যৌন নির্যাতনকারীদেরহাতে তুলে দিতেন৷
ফ্রাইবুর্গ শহরের কাছে সটাউফেন নামক জায়গায় এক যৌন নির্যাতন চক্রের মূল হোতা ছিলেন তারা৷
তদন্তকারীরা বলছেন শুধু অন্যদের হাতে তুলে দেয়া না, এই দু'জন নিজেরাই তাদের সন্তানকে যৌন নির্যাতন করতেন৷
বেরিন টি. ও তার সঙ্গীর বিরুদ্ধে ৬০ ধরনের নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়৷ এর মধ্যে জোর করে যৌনকর্মে বাধ্য করা, মৌখিক নির্যাতন, ধর্ষণও আছে৷
তদন্তকারীরা বলছেন, অনলাইনে যোগাযোগ হওয়া বেশ কিছু জার্মান ও বিদেশি নাগরিককে তারা ৯ বছরের এই শিশুকে ধর্ষণ করার সুযোগ করে দিয়েছেন৷ দুই বছর ধরে এই কাজ করে তারা হাজার হাজার ইউরো উপার্যন করেছেন৷

এ ধরনের অনেক নির্যাতনের দৃশ্য রেকর্ড করে ভিডিও অনলাইনে বিক্রি করা হয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে ছেলেটিকে মুখোশ পড়িয়ে হাত-পা বেঁধে রাখা হয়েছে৷
অজ্ঞাত এক ফোনে তথ্য পেয়ে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে পুলিশ এই চক্রকে সনাক্ত করে৷ বেরিন টি. ও তার সঙ্গীসহ মোট আটজনকে এই ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে, যাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের শিশু নির্যাতনের আরো অভিযোগ রয়েছে৷
জার্মানির তিন নাগরিক, সুইজারল্যান্ডের একজন এবং স্পেনের এক নাগরিককে এই মামলায় ৮ থেকে ১০ বছরের জেল দেয়া হয়েছে৷
প্রসিকিউটররা অবশ্য শিশুটির মায়ের সাড়ে ১৪ বছর ও তার সঙ্গীর সাড়ে ১৩ বছরের জেল চেয়েছিলেন৷



সূত্র- dw

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।