× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

ফের বৈঠকের আয়োজন করতে ট্রাম্পকে কিমের চিঠি

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৯:৫১

উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে শুরু হওয়া আলোচনা এগিয়ে নেয়ার জন্য আবারো দু’দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ের বৈঠক আয়োজন করতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে চিঠি দিয়েছেন কিম জং উন। কিমের চিঠি পাওয়ার খবর নিশ্চিত করে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। হোয়াইট হাউসের তরফ থেকে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই নতুন একটি বৈঠকের সময় নির্ধারণের বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারাহ হুকাবি স্যান্ডার্স এ কথা বলেন। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ার ‘উষ্ণ চিঠিতে’ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের জন্য দেশটির সদিচ্ছা প্রতিফলিত হয়েছে। সারাহ স্যান্ডার্স বলেন, ‘চিঠির প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আরেকটি বৈঠকের অনুরোধ ও এর সময়সূচির বিষয়ে খোঁজ নেয়া। আমরা এতে আগ্রহী। ইতিমধ্যেই আমরা এ বৈঠক আয়োজনের প্রক্রিয়া শুরু করেছি।’ তবে, ঠিক কবে নাগাদ দু’দেশের সরকার প্রধানের মধ্যে পরবর্তী বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে পারে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো ইঙ্গিত দেননি হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র। বৈঠকে বসার অনুরোধ জানিয়ে উত্তর কোরিয়ার চিঠি ও যুক্তরাষ্ট্রের ইতিবাচক প্রতিক্রিয়াকে স্বাগত জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন বলেন, কোরিয়া উপদ্বীপের নিরস্ত্রীকরণ এমন একটি ইস্যু যা উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে বাস্তবায়ন হওয়া উচিত। গত জুনে সিঙ্গাপুরের সেন্তোসা দ্বীপে ট্রাম্প ও কিমের প্রথম বৈঠক আয়োজনের ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা রেখেছিলেন মুন জায়ে ইন। আগামী সপ্তাহে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে তার। এটি হবে দুই কোরিয়ার নেতাদের মধ্যে অনুষ্ঠিত তৃতীয় বৈঠক। এদিকে, গত সপ্তাহে উত্তর কোরিয়ার ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সামরিক মহড়ায় কোনো পারমাণবিক অস্ত্র প্রদর্শন না করার বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পূর্বে বাৎসরিক মহড়ায় উত্তর কোরিয়া তাদের হাতে থাকা অত্যাধুনিক সব পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রদর্শন করতো। কিন্তু এবারের মহড়ায় দেশটি পারমাণবিক অস্ত্র ব্যতীত অন্য সব অস্ত্র প্রদর্শন করে। এ বিষয়ে সারাহ স্যান্ডার্স বলেন, এটা ট্রাম্পের বিদেশ নীতির ‘বিস্ময়কর সাফল্য’।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর