× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২১ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার

কক্সবাজারে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে নিহত ৭

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ও চকরিয়া প্রতিনিধি | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ১০:১২

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরাকান মহাসড়কের চকরিয়া বরইতলী নতুন রাস্তার মাথায় যাত্রীবাহী বাস ও যাত্রীবাহী লেগুনার মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে ৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। গতকাল ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, লোহাগাড়া উপজেলার আধুনগর গ্রামের আহমেদ হোছাইনের পুত্র খায়ের আহমদ (৩৫), বরইতলী ইউনিয়নের মনজুর আলমের পুত্র জহির আহমদ (৩৫), হারবাং ইউনিয়নের পাহাড়পাড়া গ্রামের ছৈয়দ আহমদের পুত্র আবুল কাসেম (২৭), লোহাগাড়া উপজেলার আধুনগর গ্রামের মোস্তাক আহমদের স্ত্রী রোকেয়া বেগম (৫০), তার কন্যা জাইতুন আক্তার (৩০), লোহাগাড়ার চুনতি হিন্দুপাড়া গ্রামের যতীন্দ্র সিকদারের স্ত্রী বাসন্তী সিকদার (৬৫), বরইতলী ইউনিয়নের উত্তরপাড়ার গ্রামের মনজুর আলমের পুত্র শফিকুল কাদের তুষার (১৮)। এর মধ্যে শফিকুল কাদের তুষার চকরিয়া সরকারি কলেজের ছাত্র ও খায়ের আহমদ লেগুনার দুর্ঘটনায় দুই গাড়ির অন্তত নারী-শিশুসহ প্রায় ১০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতদের মুমূর্ষু অবস্থায় প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা কক্সবাজারমুখী স্টার লাইন পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-০৬৩৮) একটি যাত্রীবাহী বাস চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ার বরইতলী ইউনিয়নের নতুন রাস্তার মাথার অদুরে ফিলিং স্টেশনে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা লোহাগাড়ামুখী একটি লেগুনা স্থানীয় ভাষায় টাটা ম্যাজিক গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ১ জন নিহত হন। মুমূর্ষু অবস্থায় ৩ জন চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পৌর শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।
এ ছাড়া গুরুতর আহতদের মধ্যে তিনজনকে মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায়।

চকরিয়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তা জিএম মহিউদ্দিন বলেন, মুখোমুখি সংঘর্ষে কয়েকজন যাত্রী গাড়ির ভেতরেই আটকা পড়ে। এ সময় বিশেষ কৌশলে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সাতজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতের মধ্যে তিনজনকে মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মহাসড়কের বানিয়ারছড়াস্থ চিরিঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ (আইসি) নূরে আলম পলাশ বলেন, মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনায় তিনজন নারী ও চারজন পুরুষ নিহত হয়েছেন।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী দুর্ঘটনায় ৭জন নিহত হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। দুর্ঘটনাকবলিত যাত্রীবাহী বাস ও লেগুনা মহাসড়ক থেকে ক্রেন দিয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার প্রায় আধঘণ্টা পর মহাসড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

মুকসুদপুরে মাইক্রোবাস চাপায় তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র নিহত
মুকসুদপুর-গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে মাইক্রোবাস চাপায় কিঞ্জর রায় (১২) নামের তৃতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। গতকাল দুপুরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের মুকসুদপুর উপজেলার দাসেরহাট নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। সে দাসেরহাট গ্রামের পিযুষ রায়ের ছেলে ও মুকসুদপুর ১৭৭নং বিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। মুকসুদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তফা কামাল পাশা জানান, বাড়ি থেকে বের হয়ে কেনাকাটার জন্য ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক পার হচ্ছিল। এ সময় ঢাকাগামী দ্রুতগতির একটি মাইক্রোবাস শিশুটিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সে নিহত হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে মুকসুদপুর থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
RAFIQ
১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ১২:৫৩

রাস্তায় একজনের ভুলের কারনেই এক্সিডেন্ট হয়. এক্সিডেেন্টর ফল ভোগ করতে হয় অনেক লোককে . তাই প্রত্যেক ড্রাইবারকেই নিখুঁত ড্রাইবার হতে হবে. একজনের ভুল অন্য জনকে ভোগ করতে হয়.

অন্যান্য খবর