× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি’ পদক চালু করছে সরকার

শেষের পাতা

দীন ইসলাম | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১০:২৩

‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’ চালু করতে যাচ্ছে সরকার। ব্যক্তি, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে পাঁচটি পদক দেয়া হবে। প্রতি বছর ২রা জানুয়ারি ‘জাতীয় সমাজসেবা দিবস’ অনুষ্ঠানে এই পদক দেয়া হবে। এ জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করেছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী পাঁচ ক্যাটাগরিতে অবদান রাখলে পদক পাওয়ার যোগ্য বিবেচিত হবেন। আগামী ১৬ই সেপ্টেম্বর প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির বৈঠকে বিষয়টি অনুমোদনের জন্য উঠবে। অনুমোদন মিললেই পদকটি চালু হবে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ই আগস্ট ‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’-এর নীতিমালা অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রস্তাব পাঠানো হয়। পদক প্রদানের খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, বয়স্কা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের কল্যাণ ও পুনর্বাসনে অবদান রাখলে পদক পাওয়ার যোগ্য বিবেচিত হবেন।

এছাড়া প্রান্তিক, অনগ্রসর ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষা, আত্মনির্ভরশীলকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে অবদান রাখলেও পদক পেতে পারে যেকোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান। খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, প্রতিটি পদক ১৮ ক্যারেট মানের ২৫ গ্রাম স্বর্ণ দিয়ে নির্মিত হবে। থাকবে ‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’-এর একটি রেপ্লিকা। ব্যক্তি পর্যায়ে দুই লাখ এবং দপ্তর, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে দুই লাখ টাকা দেয়া হবে।

পাশাপাশি একটি সম্মাননা সনদ দেয়া হবে। পদক প্রদানের মনোনয়ন প্রক্রিয়া সম্পর্কে নীতিমালায় বলা হয়েছে, আগের বছরের অবদানের ভিত্তিতে নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে মনোনয়ন চাইবে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে আবেদন দাখিল করা যাবে। তারা জেলা বাছাই কমিটিতে প্রাথমিক বাছাইয়ের মাধ্যমে প্রতিটি পুরস্কারের বিপরীতে সর্বোচ্চ দুইটি করে ১০টি নাম নির্ধারিত ছক অনুযায়ী সুপারিশসহ সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের জাতীয় কমিটিতে পাঠাবে।

নীতিমালায় মনোনয়ন বাস্তবায়নের সময়সূচি উল্লেখ করে বলা হয়েছে, প্রতি বছরের ৫ই জুলাই মনোনয়ন আহ্বান করা হবে। এরপর জেলা কমিটিতে আবেদন গ্রহণ, মনোনয়ন চূড়ান্তকরণ, সুপারিশ পাঠানো, মনোনয়ন চূড়ান্ত করা, চূড়ান্ত মনোনয়ন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো এবং প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন প্রক্রিয়া শেষে পদকপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হবে।

পুরস্কার প্রদানের ক্ষেত্রে আগের অর্থবছরের (জুলাই-জুন) কর্মকাণ্ড বিবেচনায় নেয়া হবে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ‘শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’ দেয়ার বার্ষিক ব্যয় জাতীয় পর্যায়ে আনুমানিক ২২ লাখ ৫১ হাজার টাকা ধরে একটি খসড়া বাজেট তৈরি করা হয়েছে। বলা হয়েছে, পদক প্রদান কর্মসূচির জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বাজেটে প্রতি বছর বরাদ্দ নির্ধারিত থাকবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর