× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

আদালতের পক্ষে কথা বললেন সুচি (ভিডিও)

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১১:২৫

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের দুই সাংবাদিক ওয়া লোন (৩২) ও কাইওয়া সোয়ে ও (২৮) কে জেল দেয়ায় আদালতের পক্ষেই কথা বললেন মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি। বৃহস্পতিবার তিনি বলেছেন, ওই দুই সাংবাদিক তাদের সাত বছরের জেলের বিপরীতে আপিল করতে পারেন। তাদেরকে জেল দেয়ার সঙ্গে মত প্রকাশের স্বাধীনতার কোনো সম্পর্ক নেই। অং সান সুচি হ্যানয়ে আসিয়ানের বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে যোগ দিয়েছেন। সেখানে ওই ফোরামের মডারেটর তার কাছে জানতে চান- তিনি একজন গণতান্ত্রিক নেত্রী। তার দেশে দু’জন সাংবাদিককে জেল দেয়ায় তিনি কেমন অনুভব করছেন। জবাবে সুচি বলেন, তারা সাংবাদিক বলে তাদেরকে জেল দেয়া হয় নি। তাদেরকে জেল দেয়া হয়েছে এ জন্য যে, তারা অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্ট ভঙ্গ করেছেন বলে আদালত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।  তবে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরো ভালভাবে মোকাবিলা করা যেত। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

উল্লেখ্য, অফিসিয়াল সিক্রেট আইন ভঙ্গের অভিযোগে মিয়ানমারের আদালত বহুল বিতর্কিত মামলায় ওই দুই সাংবাদিককে দোষী সাব্যস্ত করে। এ মাসের শুরুর দিকে তাদেরকে আদালত জেল দেয়। এ মামলাটিকে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রায় একটি টেস্ট হিসেবে দেখা হয়েছে। ওই দুই সাংবাদিককে জেলে রাখায় তাদের পক্ষে আন্তর্জাতিক সমর্থন এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স পর্যন্ত তাদেরকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। জেলবন্দি দুই সাংবাদিক গত বছর মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার বিষয়ে অনুসন্ধান করছিলেন। তাদেরকে ডিসেম্বরে গ্রেপ্তার করে সেদেশের পুলিশ।
এ বিষয়ে সুচি বলেন, আদালতের রায়ের সংক্ষিপ্তসার প্রকৃতপক্ষে মানুষগুলো পড়েছেন কিনা তা ভেবে আমি বিস্মিত হই। ওই রায়ের ক্ষেত্রে মত প্রকাশের স্বাধীনতায় কিছুই করার নেই। এর সঙ্গে সম্পর্ক হলো অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্ট। আমরা যদি আইনের শাসনে বিশ্বাস করি তাহলে প্রত্যেকেরই বিচারের বিরুদ্ধে আপিল করার অধিকার আছে  এবং বলার অধিকার আছে যে রায় ভুল হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের দাবির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয় সুচির। জবাবে সুচি পাল্টা প্রশ্ন করেন, সমালোচকরা কি মনে করেছেন বিচারের আইনের অপপ্রয়োগ হয়েছে। তিনি বলেন, ওই মামলার বিচার হয়েছে উন্মুক্ত আদালতে। প্রতিটি শুনানি হয়েছে উন্মুক্ত। সেখানে যেকেউ যেতে পারতেন। যারা বলেন আইনের অপপ্রয়োগ হয়েছে তাদেরকে আমি এ বিষয়গুলো ভেবে দেখতে বলবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর