× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

‘এখন সস্তা কথা ও সুরের গান বাড়ছে’

বিনোদন

ফয়সাল রাব্বিকীন | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার, ৮:২০

বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী। পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে গান করছেন। এই সময়ে প্রায় তিন হাজার গান গেয়েছেন এ শিল্পী। শুধু তাই নয়, অডিও থেকে চলচ্চিত্র- প্রতিটি ধারাতেই সফলতা পেয়েছেন। সুবির নন্দীর অনেক গান কালজয়ী হয়ে শ্রোতাদের মুখে মুখে ফিরে। গানের প্রতিটি ক্ষেত্রেই বিচরণ রয়েছে তার। আধুনিক গানের পাশাপাশি গেয়েছেন নজরুলসংগীত, শাস্ত্রীয়সংগীত, ভজন, কীর্তন এবং পল্লীগীতিও। সুবীর নন্দী এখনও ব্যস্ত সময় পার করেন গান নিয়ে। তবে আগের মতো নতুন গান ও স্টেজে পাওয়া যায় না তাকে। সব মিলিয়ে কেমন আছেন? সুবীর নন্দী বলেন, এইতো বেশ ভালো আছি। সবার দোয়ায় খুব ভালো কাটছে সময়। সংগীতে এতটা দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়েছেন। এখনো আপনার তুলনা কেবল আপনিই। এর রহস্য কি? হেসে সুবির নন্দী বলেন, শ্রোতাদের ভালোবাসা আমি যত পেয়েছি এবং পাচ্ছি এটা সবার ভাগ্যে জোটে না। তবে শ্রোতাদের জন্যই কিন্তু আমি গান করেছি। তাদের জন্যই আমি সুবীর নন্দী হয়েছি। এখানে রহস্যের কিছু নেই। কারণ, ভালোবাসা থেকে গান করেছি। শ্রোতারা সেই গানগুলো গ্রহণ করেছেন। সেটাই আমার প্রাপ্তি। জাতীয় পুরস্কারসহ বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে আপনি অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। এবার চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসে আজীবন সম্মাননা পুরস্কারে ভূষিত
হতে যাচ্ছেন। কেমন লাগছে? সুবীর নন্দী বলেন, নিশ্চয়ই ভালো লাগছে। যেকোনো স্বীকৃতিই আনন্দের। এটা কেউ বলুক আর না বলুক। আমি যতবারই কোনো পুরস্কার পেয়েছি আনন্দ তো হয়েছেই। কিন্তু ততবারই দায়িত্বের কথাটাও আমার মনে পড়ে গেছে। কোনো শিল্পীর পুরস্কার পাওয়া মানে তার দায়িত্ব আরও বেড়ে যাওয়া। কারণ, সেই শিল্পীর প্রতি আরো বেশি প্রত্যাশা তৈরি হয় শ্রোতাদের। চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ডস কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাকে আজীবন সম্মাননা পুরস্কারের যোগ্য ভাবার জন্য। আপনি এখন কী নিয়ে ব্যস্ত? সুবির নন্দী বলেন, সারা জীবনতো ব্যস্ততার মধ্যেই গেছে। ব্যাংকে চাকরি করেছি। চলচ্চিত্রে টানা গান করেছি। অডিও অ্যালবাম করেছি। স্টেজ শো করেছি। এখনও সবই করছি। তবে সংখ্যায় অনেক কম। আর এটাই স্বাভাবিক। এখন আর আগের মতো বেশি কাজ করতে চাই না। মনের মতো কাজও আসে খুব কম। মনের মতো না হলে আমি সেই গান করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি না। এই সময়ের গান কি আপনার শোনা হয়? কেমন মনে হচ্ছে? সুবীর নন্দী বলেন, শোনা হয় তবে কম। এখনকার অনেকের মধ্যেই মেধা আছে। তবে এখন স্বল্প সময়ে তারকা হওয়ার একটা প্রতিযোগিতা চলছে। এটা খুব ভালো খবর নয়। গানকে ভালোবাসতে হবে। হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। রাতারাতি তারকা হওযার জন্য গান করলে হবে না। কিন্তু এখন বেশিরভাগ ছেলেমেয়ের মধ্যে এই প্রবণতা দেখতে পাই। এর ফলে এখন সস্তা কথা ও সুরের গান বাড়ছে। এখনতো সফটওয়্যারনির্ভর শিল্পীর সংখ্যাও বাড়ছে দিন দিন। তবে এর মধ্যে থেকেও ভালো ও সত্যিকারের মেধাবীরা বেরিয়ে আসবে সেই বিশ্বাস রাখি। শেষ পর্যন্ত জয় কিন্তু ভালোরই হয়। তরুণ প্রজন্মের প্রতি আপনার পরামর্শ কী? সুবীর নন্দী বলেন, আমি চাইবো তরুণ প্রজন্ম অর্থের জন্য নয় ভালোবাসা থেকে গান করুক। সেখানে সফলতা এলে অর্থ, খ্যাতি ও সম্মান এমনিতেই আসবে। ভালো মানের কথা-সুরের কাজ করতে হবে। এমন গান করতে হবে যেগুলো যুগের পর যুগ শ্রোতারা মনে রাখবে। অবশ্য শিল্পীর রুচিবোধটাও এটার সঙ্গে যুক্ত। সংগীত নিয়ে সামনের পরিকল্পনা কী আপনার? সুবির নন্দী বলেন, এ প্রজন্মের শিল্পীরাও আমার সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী। বিষয়টি আমাকে আরও নতুন করে গান করার তাগিদ দেয়। তাছাড়া দেশকেও আরো কিছু দিতে চাই আমি। তাই সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাবো।  

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর