× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা
ঢাকা, ১৬ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার

লাকসামে স্ত্রীর গলাকাটা ও স্বামীর ঝুলন্ত লাশ

বাংলারজমিন

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি | ১১ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৮:১৫

লাকসামে এক স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা এবং তার স্বামীর পার্শ্ববর্তী রুম থেকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ভোর রাতে লাকসাম উপজেলার সালেহপুর গ্রামে। নিহত স্ত্রীর নাম রাবেয়া খাতুন (২৮) ও স্বামী ছফি উল্লাহ (৪৫)। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, লাকসাম শালেপুর গ্রামের ছফি উল্লাহ। পেশা কৃষিকাজ। ছফি উল্লাহ পূর্বে একটি বিয়ে করেন। ওই ঘরে ১৪ বছরের একটি পুত্রসন্তান রয়েছে। ওই সন্তান চট্টগ্রামে একটি ডিমের আড়তে চাকরি করে।
প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর ছফি উল্লাহ মনোহরগঞ্জ উপজেলার মৈশাতুয়া ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। ওই স্ত্রীর নাম রাবেয়া খাতুন। তার ঘরে দুটি কন্যাসন্তান রয়েছে। নসরাত ৯ বছর এবং সাইফার বয়স ৫ বছর। ছোট মেয়ে সাইফা রাতের বেলায় মায়ের সঙ্গে ঘুমিয়ে ছিল। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখে তার মা গলাকাটা অবস্থায় এবং পাশের রুমে তার বাবা ঘরে সিলিংয়ের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। মেয়ে চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এসে ঘটনাটি দেখে। স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে এবং কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করে। এ ব্যাপারে নিহত ছফি উল্লাহর বৃদ্ধ পিতা মুন্সী হেদায়েত উল্লাহ বলেন, আমার ছেলে ছফি উল্লাহ মানসিক রোগে ভুগছিল। সে মানসিক রোগী। স্ত্রীর সঙ্গে প্রায় ঝগড়া-বিবাদ ও এলাকার লোকজনের সঙ্গে প্রতিনিয়ত খারাপ আচরণ করতো। লাকসাম-মনোহরগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান ও লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনোজ কুমার দে বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই দম্পত্তির স্বামী ছফি উল্লাহ’র ঝুলন্ত ও স্ত্রী রাবেয়ার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর