× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার

স্ত্রী আমাকে অবসর নিতে দেয়নি: হাফিজ

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১১ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১২:২৭

২০০৩ সালে পাকিস্তান জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক হয় মোহাম্মদ হাফিজের। এর পর গত ১৫ বছরে নিজেকে দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় হিসেবে প্রমাণ করেছেন। কেন্দ্রীয় চুক্তিতেও দীর্ঘদিন ধরে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) শীর্ষ ক্যাটাগরি এ-তে ছিলেন অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটার। অবশ্য নতুন কেন্দ্রীয় চুক্তিতে এ ক্যাটাগরি থেকে নামিয়ে হাফিজকে দেয়া হয় বি ক্যাটাগরিতে, যা অপমান হিসেবেই দেখেছেন এই অলরাউন্ডার। আর এই অপমানের জেরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের কথাও ভেবেছিলেন হাফিজ। কিন্তু তার স্ত্রী নাজিয়া হাফিজকে অবসরের সিদ্ধান্ত না নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কেন্দ্রীয় চুক্তিতে অবনমনের পর হাফিজের জায়গা হয়নি সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপের ১৪তম আসরেও। চলমান অস্ট্রেলিয়া সিরিজে হুট করেই ডাক পান জাতীয় দলে।
প্রত্যাবর্তনের টেস্টটি হাফিজ রাঙিয়েছেন সেঞ্চুরি হাঁকিয়েই। দুই বছর পর টেস্ট দলে ফিরে সেঞ্চুরি পাওয়া নিয়ে হাফিজ বলেন, এশিয়া কাপে সুযোগ না পেয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলাম। আমি হয়তো সেই কঠোর সিদ্ধান্তটাও নিয়ে ফেলতাম। তবে স্ত্রী (নাজিয়া) আমাকে থামায়। শোয়েব আখতারও আমাকে বুঝিয়ে আটকেছে। আমি মনে করি আল্লাহ অনেক বড় পরিকল্পনাকারী এবং তিনি সব ভালোর জন্যই পরিকল্পনা করেন। শোয়েব আখতারও বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এক টুইটে পাকিস্তানের সাবেক এই পেসার লিখেন, হাফিজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েই ফেলেছিল। আমি তাকে বোঝানোর চেষ্টা করি। আল্লাহর রহমতে সে আমার কথা শুনেছিল। আর সে এই টেস্টে পাকিস্তানকে বাঁচিয়ে চলেছে। দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হাফিজ-হ্যারিস সোহেলের সেঞ্চুরিতে ভর করে ৪৮২ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় পাকিস্তান। জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে বিলাল আসিফের ঘূর্ণি জাদুতে ২০২ রানে গুটিয়ে যায় অজিরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর