× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা রম্য অদম্য
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চট্টগ্রামে প্রথম মামলা

অনলাইন

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১২ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার, ৪:১৯

সদ্য পাশ হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চট্টগ্রামে প্রথম মামলা রেকর্ড করা হয়েছে আবুল কাসেম নামে বিএনপির এক সমর্থকের বিরুদ্ধে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে ব্যঙ্গ করে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার অভিযোগে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় এ মামলা রেকর্ড করা হয়।

পাঁচলাইশ থানা পুলিশের এসআই মোহাম্মদ আবু তালেব বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে বাদী হয়ে মামলাটি রেকর্ড করেন। মামলার একমাত্র আসামি আবুল কাসেমকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের জনৈক আবদুর রশীদ ভান্ডারীর পুত্র আবুল কাসেম নগরীর ষোলশহর দুই নম্বর গেট এলাকায় বসবাস করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তেমন কিছু না করলেও তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের একনিষ্ঠ সমর্থক।

পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহিউদ্দীন মাহমুদ জানান, আবুল কাসেম বহুল আলোচিত ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি বিকৃত করে আপত্তিকর মন্তব্যসহ ফেসবুকে পোস্ট দেন। আবুল কাসেম-এমডি কাসেম ও আবুল কাসেম নামে দুইটি ফেসবুক একাউন্ট পরিচালনা করেন।
তিনি আরও বলেন, আবুল কাসেম নিজের ফেসবুক পোস্টে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতে শেকল পরিয়ে হাজতখানায় বন্দীর মতো করে দেখায় এবং লিখে যে নাজিমুদ্দিন রোডে ফাঁসি দেয়ার পর গোপালগঞ্জে লাশ নিয়ে গেলে গ্রহণ করার মতো কোন লোক থাকবে না।

এছাড়া সে মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে পাগল এবং পায়ে শেকল পরানো একটি ছবি দিয়ে তাকে মেন্টাল হাসপাতালে নেয়ার কথা লিখে পোস্ট দেয়।
এমনকি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নাম শুনলে বমি আসে বলে পোস্ট দিয়ে বমি করছে এমন একটি পোস্ট দেয়।

যা নজরে আসার পর থানার এস আই মোহাম্মদ আবু তালেবকে মামলা রেকর্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়। মোহাম্মদ আবু তালেব সদ্য পাশ হওয়া বহুল আলোচিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(২) ধারায় পাঁচলাইশ থানায় মামলা রেকর্ড করেন। মামলা নম্বর- ৫(১০)/১৮। আর এটিই এই আইনে চট্টগ্রামে প্রথম মামলা। মামলা রেকর্ডের পরপরই আবুল কাসেমকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান ওসি মহিউদ্দীন মাহমুদ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ইনাম
১২ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার, ৪:৫৯

ডিজিটাল মানে কি ? এই পর্যন্ত এর কূল কিনারা কিছুই বুঝতে পারলামনা । কি দেশ ? কি মানুষ ? কি সরকার? কি আইন ? সব যেন উল্টা - পাল্টা।

অন্যান্য খবর