× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২২ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার

ট্রাম্পের লিটমাস টেস্ট

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৬ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ১২:০৭

যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচন আজ। এ নির্বাচনকে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের জন্য লিটমাস টেস্ট হিসেবে দেখা হচ্ছে। কারণ, এ নির্বাচনে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ ও উচ্চ কক্ষ সিনেটে ভোট গ্রহণ করা হবে। বর্তমানে উভয় কক্ষের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে রিপাবলিকানদের হাতে। তবে আজকের নির্বাচনে এর দুটিই বা কোনো একটি তাদের হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যদি তাই হয় তাহলে ক্ষমতার বাকি আগামী প্রায় দু’বছর ট্রাম্পকে অনেক কঠিন অবস্থার মুখোমুখি হতে হবে। প্রতিনিধি পরিষদের সব কয়টি আসন অর্থাৎ ৪৩৫টি আসনে এবং ১০০ আসনের সিনেটের ৩৫ আসনে নির্বাচন হবে। এ ছাড়া ৩৯টি গভর্নরশিপের নির্বাচন হবে।
ভারমন্টে স্থানীয় সময় সকাল ৫টায় ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার কথা। তবে পূর্ব উপকূলের অনেক রাজ্যে ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার কথা সকাল ৬টা ও ৭টায়। ১২ ঘন্টা উন্মুক্ত থাকবে ভোটকেন্দ্রগুলো। এখন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ২৩৫ টি আসনের দখল রয়েছে ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টির হাতে। অপরদিকে ডেমোক্রেটদের রয়েছে ১৯৩টি আসন। এই হাউজের তাই সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য ডেমোক্রেটদের ২৩ আসন দরকার। অপরদিকে সিনেটে রিপাবলিকানরা অতি সামান্য এগিয়ে থেকে সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়েছে। সেখানের শতকরা ৫১ ভাগ আসন রিপাবলিকানদের দখলে ও বাকি ৪৯ শতাংশ ডেমোক্রেটদের দখলে। সাধারনত যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে শাসক দলের আসন সংখ্যা কমে যায় ও বিরোধীদলগুলো অধিক আসন পেয়ে থাকে। এ বছর মধ্যবর্তী নির্বাচনে বড় পরিবর্তন আসতে পারে অভিবাসন, কর্মসংস্থান ও স্বাস্থ্যখাতের মত বিষয়গুলোকে কেন্দ্র করে। ডেমোক্রেটরা ডনাল্ড ট্রাম্পকে দুষছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে থাকা তার বাণিজ্য সংকটের কারণে। যার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে কর্মসংস্থান কমে যাচ্ছে। অপরদিকে রিপাবলিকানরা দাবি করছেন, ডেমোক্রেটদের জন্যেই মধ্য আমেরিকার দেশগুলো থেকে অবৈধ অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্রমুখি হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর