× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, রবিবার

৬ বছর পর রাজশাহীর শিরোপা উৎসব

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ৯ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ৯:০৯

জাতীয় ক্রিকেট লীগে (এনসিএল) ৬ বছর পর শিরোপা জিতলো রাজশাহী বিভাগ। আর যৌথভাবে রেকর্ড সর্বাধিক ষষ্ঠ শিরোপা জিতে খুলনা বিভাগের পাশে বসলো দলটি। দেশের সবচেয়ে পুরনো প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট টুর্নামেন্টের গত তিন মৌসুমেই চ্যাম্পিয়ন হয় খুলনা। গতকাল প্রথম স্তরের ম্যাচে চতুর্থ ও শেষ দিনে বরিশাল বিভাগকে ৬ উইকেটে হারায় স্বাগতিক রাজশাহী। এনসিএলের ষষ্ঠ ও শেষ রাউন্ডের বাকি তিন ম্যাচ ড্রয়ে শেষ হয়। নিজ মাঠে তৃতীয় দিনেই জয়ের ভিত গড়ে রাজশাহী। শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে ২৮৪ রানের লক্ষ্যে ১০২ রান দূরে ছিল জহুরুল ইসলামের দল। গতকাল ১৮২/২ সংগ্রহ নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে রাজশাহী।
প্রথম ইনিংসে ফিফটির (৭৮) পর দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ১২০ রানে অপরাজিত থাকেন জুনায়েদ সিদ্দিক। ১৮১ বলের ইনিংসটিতে ছিল ১৭টি চারের মার। অধিনায়ক জহুরুল ৬৪ রান করে আউট হন। এর আগে ঘুরে দাঁড়ানোর নৈপুণ্য দেখায় বরিশাল। প্রথম ইনিংসে মোহর শেখের পাঁচ উইকেটের পেস তোপে ৯৭ রানে অলআউট হয় বরিশাল। পরে মনির হোসেনের হ্যাটট্রিকসহ পাঁচ উইকেটের স্পিন ঘূর্ণিতে রাজশাহীকে ১৬০ রানে আটকে দেয় তারা। আর নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪৬ রান তোলে বরিশাল। অর্ধশতক করেন আল আমিন (৯৭) ও শামসুল ইসলাম (৫৬)। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং ব্যর্থতা ডোবায় বরিশালকে। ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন জুনায়েদ।
অবনমন থেকে খুলনার রক্ষা
রংপুর বিভাগের সঙ্গে ড্র করে অবনমন এড়ালো খুলনা। আর রাজশাহীর কাছে হেরে প্রথম স্তর থেকে দ্বিতীয় স্তরে নেমে গেছে বরিশাল। খুলনার সঙ্গে বরিশালের অবস্থানে রদবদল হয়। দুই দলের পয়েন্ট যথাক্রমে ১৬.১৫, ১৪.৬১। অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী ৬ ম্যাচে ২ জয় ও ৪ ড্রয়ে ৩৪.৮১ পয়েন্ট নিয়ে মৌসুম শেষ করে। এক জয় ও পাঁচ ড্রয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা রংপুর বিভাগের সংগ্রহ ২৪.৫৯। অন্যদিকে, দ্বিতীয় স্তরের শীর্ষস্থান ধরে রেখে আগামী মৌসুমের প্রথম স্তরে উঠে এলো ঢাকা বিভাগ। চার দলের দ্বিতীয় স্তরের পয়েন্ট তালিকায় অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি। দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে যথাক্রমে ঢাকা মেট্রো, চট্টগ্রাম বিভাগ ও সিলেট বিভাগ। আর চার দলের পয়েন্ট যথাক্রমে ২৯.৩৫, ২৫.১৩, ২১.১১, ২০.১২।
বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে খুলনার দেয়া ২৯৫ রানের টার্গেটে ম্যাচ ড্রয়ের আগে রংপুরের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৮৪/৬। শতরানের ওপেনিং জুটি গড়েন মেহেদি মারুফ (৫০) ও রাকিন আহমেদ (৭৪)। এর আগে ১৯২/৬ সংগ্রহ নিয়ে চতুর্থ দিনের ব্যাটিংয়ে নামে খুলনা। সৌম্য সরকার (৮৩) ও নুরুল হাসান সোহানের (৫২) পথ ধরে অর্ধশতক করেন জিয়াউর রহমান (৫২) ও মঈনুল ইসলাম (৫৫)। প্রথম দুইদিন খেলা শুরু হতে বিলম্ব হয়। আর প্রথম ইনিংসে খুলনার ২৬১ রানের জবাবে লিড নেয়ার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও ২৪৯/৮ সংগ্রহে ইনিংস ঘোষণা করে রংপুর। চার উইকেট নেন খুলনা অধিনায়ক আবদুর রাজ্জাক। ম্যাচসেরা হন দুই ইনিংসেই ফিফটি করা মঈনুল ইসলাম।

জাতীয় ক্রিকেট লীগের রোল অব অনার
১৯৯৯-০০ চট্টগ্রাম বিভাগ
২০০০-০১ বিমান বাংলাদেশ
২০০১-০২ ঢাকা বিভাগ
২০০২-০৩ খুলনা বিভাগ
২০০৩-০৪ ঢাকা বিভাগ
২০০৪-০৫ ঢাকা বিভাগ
২০০৫-০৬ রাজশাহী বিভাগ
২০০৬-০৭ ঢাকা বিভাগ
২০০৭-০৮ খুলনা বিভাগ
২০০৮-০৯ রাজশাহী বিভাগ
২০০৯-১০ রাজশাহী বিভাগ
২০১০-১১ রাজশাহী বিভাগ
২০১১-১২ রাজশাহী বিভাগ
২০১২-১৩ খুলনা বিভাগ
২০১৩-১৪ ঢাকা বিভাগ
২০১৪-১৫ রংপুর বিভাগ
২০১৫-১৬ খুলনা বিভাগ
২০১৬-১৭ খুলনা বিভাগ
২০১৭-১৮ খুলনা বিভাগ
২০১৮-১৯ রাজশাহী বিভাগ
(২০০০-০১ মৌসুম থেকে প্রথম শ্রেণির স্বীকৃতি পায় এনসিএল)

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর