× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, সোমবার

সুপার লীগ খেললে বিশ্বকাপে খেলতে পারবেন না মেসি-নেইমাররা

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ৯ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ১১:৪৮

কয়েক দিন আগে ফুটবল লিকস তাদের নতুন প্রতিবেদনে ফাঁস করেছে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, চেলসি, জুভেন্টাস, বায়ার্নের মতো মোট ১১ ক্লাব নিজেরা মিলে ‘উয়েফা সুপার লিগ’ নামের এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে চায়। তারা আর খেলতে চায় না ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ। আর এই ব্যাপারে ফিফা প্রধান জিয়ান্নি ইনফান্তিনো সহযোগিতা করে যাচ্ছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। অথচ কাল এই ইনফান্তিনোই এই সব অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করে ঘোষণা করেছেন, ‘সুপার লীগ’-এ যেসব খেলোয়াড় খেলবেন, বিশ্বকাপে আর খেলতে পারবেন না তারা। তিনি বলেন, হয় সুপার লিগ, নয় ফিফার প্রতিযোগিতা। একই সঙ্গে দুই জায়গায় খেলতে পারবে না খেলোয়াড়েরা। উয়েফা সুপার লিগ যদি প্রতিষ্ঠিত হয়, তাহলে সেখানে যারা খেলবে, তারা বিশ্বকাপ, ইউরোসহ ফিফা আয়োজিত জাতীয় ও আন্তর্জাতিক কোনো টুর্নামেন্টেই অংশ নিতে পারবে না। সেই ২০১৬ থেকে এই পরিকল্পনা সম্পর্কে শোনা যাচ্ছিল, কিন্তু এত বিস্তারিতভাবে এবারই প্রথম এই ঘটনা ফাঁস হলো।
শোনা যাচ্ছে, ঘটনার মূল কুশীলব ইউরোপের সেরা ১১ ক্লাব স্প্যানিশ লা লিগার রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা, ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, চেলসি, আর্সেনাল, লিভারপুল ও ম্যানচেস্টার সিটি, জার্মান লিগের বায়ার্ন মিউনিখ, ইতালিয়ান লিগের জুভেন্টাস আর এসি মিলান, ফরাসি লিগের প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। প্রস্তাবিত ১৬ দলের ‘উয়েফা সুপার লিগে’র বাকি পাঁচ সদস্য হবে আমন্ত্রিত পাঁচ ক্লাব জার্মানির বরুশিয়া ডর্টমুন্ড, ইতালির ইন্টার মিলান আর এএস রোমা, ফ্রান্সের অলিম্পিক মার্শেই, স্পেনের অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। আর কোনোভাবে এই লিগ যদি শুরু হয়ে যায়, তাহলে হয়তো ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের আর কোনো অন্তিত্বই থাকবে না। এই মহাপরিকল্পনা এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের চার্লি স্টিলিটানোর মাথা থেকে। এই স্টিলিটানোই যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগের ক্লাবগুলোর সঙ্গে ইউরোপের বিভিন্ন ক্লাবের প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করেন। আর এই পরিকল্পনাকে সামনে রেখে পুরো ব্যাপার বাস্তবায়ন করতে রীতিমতো উঠেপড়ে লেগেছেন রিয়াল মাদ্রিদ সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ। সঙ্গে আছেন বায়ার্ন মিউনিখের চেয়ারম্যান কার্ল হেইঞ্জ রুমেনিগেসহ ইউরোপীয় ফুটবলের শীর্ষ কর্মকর্তারা। যদিও ফুটবল লিকসে ব্যাপারটি উঠে আসায় নিজের ভূমিকা অস্বীকার করেছেন রুমেনিগে। পেরেজের বক্তব্য এখনো জানা যায়নি। আর গোটা পরিকল্পনা তত্তাবধান করছেন ইনফান্তিনো। ফুটবল লিকসের প্রতিবেদনে আরও বেরিয়ে এসেছে, এই মূল ১১ ক্লাব একটা কোম্পানি গঠন করে স্প্যানিশ শেয়ারবাজারে নিবন্ধিত হওয়ার পরিকল্পনা করছে। বিভিন্ন ভাগে যে কোম্পানির মালিকানা থাকবে ওই ১১ ক্লাবের কাছে। এই কোম্পানির সবচেয়ে বড় শেয়ার থাকবে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে (১৮.৭৭%), দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শেয়ার থাকবে বার্সেলোনার কাছে (১৭.৬১%), তৃতীয় ও চতুর্থ সর্বোচ্চ শেয়ারের মালিকানা থাকবে যথাক্রমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১২.৫৮%) ও বায়ার্ন মিউনিখের (৮.২৯%) কাছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর