× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, রবিবার

শীতের আশীর্বাদ

ষোলো আনা

মো. কামরুল ইসলাম | ১৬ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ৮:৪৪

ভোরের শিশির ভেজা সকাল। সঙ্গে মৃদুমন্দ হিমেল হাওয়া। শীতের আগমনী বার্তাকে পৌঁছে দিচ্ছে সবার কাছে। সেই বার্তা প্রবল করেছে হরেক রকম শীতকালীন শাক-সবজি। শীতের শুরুতেই জমে উঠেছে রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা বাজারগুলো।

রাজধানীর ব্যস্ততম ও প্রধান কাঁচাবাজার হিসেবে খ্যাত কাওরান বাজারের চিত্রও তার ব্যতিক্রম নয়। এই পাইকারি ও খুচরা বাজারে লেগেছে বাহারি শীতকালীন শাক-সবজির ছোঁয়া।

সরজমিন, কাওরান বাজার ঘুরে দেখা গেছে পাইকারি ও খুচরা শাক-সবজি বিক্রেতারা রীতিমত ব্যস্ত সময় পার করছেন। শীতকালীন শাক-সবজির মধ্যে বাজারে এসে উপস্থিত হয়েছে- ফুল কপি, বাঁধা কপি, পিয়াজ কলি, ধনে পাতা, ডাটা শাক, লাল ও সবুজ শিম, বরবটি, লাউ, চাল কুমড়া, পাকা ও কাঁচা টমেটো, জলপাই, লাল ও সাদা মুলা, মিষ্টি কুমড়া, সবুজ ও লাল শালগম, মুলা শাকসহ আরো অনেক প্রকার শাক-সবজি।

বিশেষ করে- ফুল কপি, বাঁধা কপি, পিয়াজ কলি, পাকা টমেটো, সবুজ ও লাল শালগম, সবুজ ও লাল শিম, লাউয়ের চাহিদা একটু বেশি।

মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর থেকে ট্রাক ভর্তি পিয়াজ কলি নিয়ে এসেছেন আব্দুল খালেক নামের এক ব্যাপারি। তিনি জানান, ৭শ’ থেকে ৮শ’ টাকা পড়েছে প্রতিমণ পিয়াজ কলি।
মোট এনেছেন তিনি ২৮ মণ। এটি খুচরা বাজারে ১৫/২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হবে।

ফুলকপি বিক্রেতা মো. হাসান জানালেন, বগুড়া থেকে একট্রাক (৬০০০/৭০০০ পিস) ফুলকপি এনেছেন তিনি। ১২/১৩ টাকা দরে কেনা পরেছে। আর বিক্রি করবেন, বাজার ভালো হলে ১৬/১৭ টাকা, বাজার খারাপ হলে ১০/১২ টাকা পিস হিসেবে।

ধনে পাতা বিক্রেতা মো. রুবেল বললেন, ১০০ কেজি ধনে পাতা ৮শ’ টাকা মণ হিসেবে কিনে এনেছেন তিনি। এখন বিক্রি করবেন ২৫/৩০ টাকা কেজি দরে।

খুচরা বাজারে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পাকা টমেটো। এই দৌড়ে পিছিয়ে নেই কাঁচা টমেটোও। ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে তা।

বাঁধাকপি বিক্রেতা সাইদ জানালেন, তিনি ও একট্রাক বাঁধা কপি এনেছেন কাওরান বাজারে। ট্রাকে ৬০০০/৭০০০ পিস বাঁধা কপি রয়েছে। কেনা পড়েছে ১০/১২ টাকা দরে। এখন বিক্রি করার আশা প্রকাশ করেন ১৮ থেকে ২০ টাকা প্রতি পিস।

সাভার থেকে শালগম এনেছেন রিয়াজ নামের এক ব্যবসায়ী। তিনি জানালেন, তার ওই ট্রাকে ৮০ মণের মতো শালগম রয়েছে। প্রতিকেজি ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। এ ছাড়াও বাজারে চোখে পড়ে মুলা, পালং, সরিষা, লাউ ইত্যাদি শাকের আধিপত্য।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর