× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, রবিবার

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মনোনয়ন লড়াইয়ে ৯ চিকিৎসক

ইলেকশন কর্নার

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১৮ নভেম্বর ২০১৮, রবিবার, ৮:৫৬

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে চান চট্টগ্রামের ৯ চিকিৎসক। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন পেতে এসব চিকিৎসক নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তাদের নিয়ে বিভিন্ন আসনে চলছে নানা আলোচনাও।
চট্টগ্রাম-৮ রাঙ্গুনিয়া আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) শীর্ষ নেতা। ডাক্তার ফয়সল ইকবাল চৌধুরী। যিনি এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে এখন আলোচনার শীর্ষে।
বিগত ১০ বছরে রাঙ্গুনিয়ার সর্বাত্মক উন্নয়নের কারণে হাছান মাহমুদকে যেখানে আওয়ামী লীগের একমাত্র প্রার্থী হিসেবে ধরা হচ্ছে, সেখানে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে এখন মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন ডাক্তার ফয়সল ইকবাল চৌধুরী। মনোনয়নপত্র সংগ্রহের আগেও তিনি রাঙ্গুনিয়ায় বিশাল শোডাউন করে হাছান মাহমুদ অনুসারীদের কপালে ভাঁজ ফেলেছেন।

এরইমধ্যে ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরীর সমর্থকরা আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দেখতে চাই এমন দাবি সংবলিত পোস্টার-ব্যানরে সয়লাব করে দিয়েছে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার হাটবাজার ও জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকাসমূহ। ফেসবুকেও চলছে ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরীর প্রচারণা। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেতে ফরম সংগ্রহ করেছেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা সাদেক চৌধুরীর ছোট ভাই ওসমান গণি চৌধুরীও। তিনিও রয়েছেন আলোচনায়।
এ ব্যাপারে ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরী বলেন, সরকার সারা দেশের মতো রাঙ্গুনিয়ায়ও যথেষ্ট উন্নয়ন করেছে। যার সুফলের সবটুকুর দাবি করেন বর্তমান সংসদ সদস্য। কিন্তু উন্নয়নের কর্ণধার যে সরকার তা জানা থেকে বঞ্চিত সাধারণ ভোটাররা। তাছাড়া রাঙ্গুনিয়ায় বিকল্প নেতা তিনি সহ্য করেন না।
সবকিছু ছাপিয়ে আমি সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড মানুষের দোড় গোড়ায় তুলে ধরেছি। তৃণমূল নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের কাছে ভোট চেয়েছি। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছি। উপজেলার অত্যাচারিত নেতাকর্মীর পাশে ছিলাম। মনোনয়ন পেলে নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।
চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালি-বাকলিয়া) আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ডক্টরস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) চট্টগ্রামের সাবেক সাধারণ সমপাদক ডা. শাহাদাত হোসেন। তিনি চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি। পুলিশের ওপর হামলার মামলায় তিনি বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। এ আসনে বিএনপির আরো কয়েকজন নেতা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করলেও তিনিই হেভিওয়েট প্রার্থী। শুধু বিএনপি নয়, এ আসন থেকে আওয়ামী লীগের একাধিক হেভিওয়েট প্রার্থী থাকলেও চিকিৎসক নেতা হিসেবে সাধারণ ভোটারদের মাঝে পরিচিত ডা. শাহাদাত হোসেন।
চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-হালিশহর) আসন থেকেও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) চট্টগ্রামের সাবেক সভাপতি ডা. শেখ শফিউল আজম। তবে, এ আসনে আওয়ামী লীগের আরেক হেভিওয়েট প্রার্থী রয়েছেন। তিনি হচ্ছেন সাবেক মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য ডা. আফসারুল আমীন।
চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) কেন্দ্রীয় কমিটি সাংগঠনিক সমপাদক ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান।
চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বিএমএর কেন্দ্রীয় যুগ্ম সমপাদক ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসন থেকে ড্যাব চট্টগ্রামের সাবেক সভাপতি ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) আসন থেকে ডা. মহসিন জিল্লুর করিম ও চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারি) ডা. ফাওয়াজ শুভ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন।
এ বিষয়ে বিএমএ চট্টগ্রামের সাবেক সভাপতি ডা. শেখ শফিউল আজম বলেন, নির্বাচন করার আগ্রহ নিয়ে আমার দল আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছি। বাকিটা সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর নির্ভর করছে।
নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে কারান্তরীণ নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের একান্ত সহকারী অ্যাডভোকেট মারুফুল হক চৌধুরী বলেন, স্যার ইতিমধ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়ন ফরম নেয়ার জন্য চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের অনুমতি চেয়ে আবেদনও করা হয়েছে।
সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান বলেন, দলের হয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সুখে দুঃখে দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে আছি। এ ছাড়া চিকিৎসকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে দলের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছি। কারণ চিকিৎসকদের সঙ্গে তৃণমূল জনগণের সমপৃক্ততার ফলে সেবা করার সুযোগও বেশি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর