× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪

আলোচনায় বদিউল আলম

ইলেকশন কর্নার

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে | ২০ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৮:৫৮

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে দলের মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন রপ্তানি খাতে বিশেষ অবদানের জন্য সিআইপি মর্যাদাপ্রাপ্ত একেএম বদিউল আলম। এলাকায় নানা সামাজিক কাজকর্মের জন্য পরিচিত এই মুখ দলের মনোনয়ন জমা দেয়ার পর থেকেই রয়েছেন আলোচনায়। মনোনয়ন পাওয়ার আশাও রয়েছে তার।
কসবা উপজেলার আড়াইবাড়ী গ্রামের সন্তান বদিউল আলম কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে পড়ার সময়েই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। পরে ঢাকসু নির্বাচনে জহুরুল হক হল ছাত্রলীগ থেকে ক্রীড়া সম্পাদক পদে নির্বাচন করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যবস্থাপনা বিভাগে অনার্স-মাস্টার্স পাস বদিউল ব্যবসা সফল ব্যক্তিত্ব। ১৯৯৫ সালে গার্মেন্টস ব্যবসায় নিয়োজিত হন তিনি। তার অ্যাপারেল মার্কেটিং অ্যান্ড ট্রেডিং নেটওয়ার্ক, ভেন্টেজ অ্যাপারেল লিমিটেড, গার্মেন্টস এক্সপোর্ট ভিলেজ এবং অ্যামট্রানেট নামের গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠানে ৭ সহস্রাধিক লোকের কর্মসংস্থান করেছে।
রপ্তানিতে বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৮ সালে সিআইপি মর্যাদা পেয়েছেন তিনি। মিডল্যান্ড ব্যাংক, মিডল্যান্ড পাওয়ার লিমিটেড, মিডল্যান্ড ইস্ট পাওয়ার লিমিটেড, শাহজীবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, জ্বালানি তেল শোধনকারী পেট্রোমেক্স রিফাইনারিতে রয়েছে তার বিনিয়োগ। এছাড়া বীমাসহ আরো কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্টতা রয়েছে তার। সামাজিক কাজকর্মের কারণে এলাকায় বদিউল আলমের সুনাম এবং পরিচিতি রয়েছে অনেক আগে থেকেই। নিজ এলাকায় একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদ এবং মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি। কসবা সদরে ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বদিউল আলম সায়েন্স অ্যান্ড টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট। ১৬ বছর ধরে কসবা পৌর হাইস্কুল এবং ১৪ বছর ধরে কসবা মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি পদে রয়েছেন তিনি। কসবা পৌর হাইস্কুলে নিজস্ব অর্থায়নে দ্বিতল ভবন নির্মাণ করে দিয়েছেন। আড়াইবাড়ী কামিল মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি তিনি। ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। তার বাবা প্রয়াত আবদুর রহিম ছিলেন একজন ম্যাজিস্ট্রেট। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা সদর আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট লুৎফুল হাই সাচ্চুর নিকট আত্মীয়। একেএম বদিউল আলমের দলের মনোনয়ন চাওয়ার খবরে এলাকার মানুষ একজন পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি এবং সামাজিক কাজকর্মে নিয়োজিত বলে তাকে নিয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠে। বদিউল আলম জানান, গত দশ বছর ধরেই এলাকায় নানা জনহিতকর কাজে তিনি সম্পৃক্ত। তবে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়াকে লক্ষ্য করে তিনি এসব করেননি। মনোনয়ন না পেলেও তার এসব কাজ অব্যাহত থাকবে। নিজ অর্থে আগামী তিন বছরের মধ্যে কসবায় একটি মাতৃসদন ও ডায়াবেটিক হাসপাতাল করার ইচ্ছা রয়েছে তার। তবে সংসদ সদস্য হতে পারলে ব্যাপকভাবে এলাকার মানুষের জন্য কাজ করতে সক্ষম হবেন বলে জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর