× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার
চাঁদপুর-৫

মেজর রফিক নাকি বাহাদুর শাহ?

ইলেকশন কর্নার

হাছান মাহমুদ, হাজীগঞ্জ (চাঁদপুর) থেকে | ২৫ নভেম্বর ২০১৮, রবিবার, ৮:৩২

চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনী এলাকায় ছাড় দিতে নারাজ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ। এ আসনে একডজন প্রার্থী নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ছেন আওয়ামী লীগ। এখানে সংসদ সদস্য মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের এটিই শেষ নির্বাচন। অন্যদিকে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সৈয়দ বাহাদুর শাহ্‌কে নিবন্ধন রক্ষায় বাধ্যতামূলক নির্বাচন করতে হচ্ছে। মহাজোটের অংশীদারিত্ব নিয়ে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশও ছাড় দিতে নারাজ। ভোটারদের মাঝে শোরগোল হচ্ছে- কার ভাগ্যে নৌকা? মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম নাকি সৈয়দ বাহাদুর শাহ! ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সৈয়দ বাহাদুর শাহ্‌ মুঠোফোনে বলছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহাজোটের অংশ হিসেবে আমার দলটি নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করবে মর্মে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের কাছে চিঠি প্রেরণ করেছেন। ইতিমধ্যে
মহাজোটের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের নির্দেশ দিয়েছেন। শিগগির নৌকা প্রতীকে নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দেবো ইনশাআল্লাহ।
জানতে চাইলে তিনি বলেন, মহাজোটের অংশ হিসেবে নৌকা প্রতীকেই নির্বাচন করবো। এবার আমার দল নির্বাচনে না গেলে নিবন্ধন বাতিল বলে গণ্য হবে। অবশেষে যদি মহাজোট থেকে মনোনয়ন না পাই, তাহলে চেয়ার প্রতীক থেকে পৃথকভাবে নির্বাচন করতে হবে। এই আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন ১৩ জন। তারা হলেন- সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য মেজর রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম, সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি নূরজাহান বেগম মুক্তা, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য অধ্যাপক একেএম ফজলুল হক, পাওয়ারসেলের ডিজি ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ হোসাইন, ইঞ্জিনিয়ার সফিকুর রহমান, ব্রিগেডিয়ার (অব.) সালাহ্‌উদ্দিন, কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সভাপতি মো. সফিকুল আলম ফিরোজ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহসম্পাদক ড. এসএম মোস্তফা কামাল, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ অধ্যাপক আবদুর রশিদ মজুমদার, কেন্দ্রীয় যুব লীগের যুগ্ম সম্পাদক নাসরিন জাহান শেফালি, হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ হেলাল উদ্দিন মিয়াজী, সাবেক এমপি মরহুম আ. রবের ছেলে খালেদুর রব মিঠু ও আওয়ামী লীগ সমর্থক আলী আহসান মাহমুদ।
তাদের মধ্যে আলোচনায় মাত্র তিনজন। তারা হলেন- সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ইঞ্জি.সফিকুর রহমান। তিনবারের সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম। তিনি মুক্তিযুদ্ধের ১নং সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার।
সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তত্ত্বাবধায়ক সরকারে সাবেক উপদেষ্টা। দীর্ঘদিন ধরে তিনি স্থানীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে উঠান বৈঠক করে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন। হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মো. মাঈনুদ্দিন বলেন, মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এই আসনে নৌকার মনোনয়ন পাওয়াটা নিশ্চিত। নেতা-কর্মীরা কোনো দুশ্চিন্তা করার কারণ নেই। আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তমকে বিজয় করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর