× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার
কুড়িগ্রাম-৪

প্রার্থী জট কাটছে না

ইলেকশন কর্নার

চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি | ১ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার, ৮:২৮

সবার মুখে ভোট, জোটে রয়েছে গণফোরাম। যুবক, যুবতী, নারী কিংবা বয়স্করা সবার মুখে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। প্রার্থীর ছড়াছড়ি আর দৌড়ঝাঁপে দিনের পর দিন নির্বাচনী মাঠ গরম হয়ে উঠেছে। সেই গরম আরো তীব্র হয়ে উঠেছে কুড়িগ্রাম-৪ আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ২৩ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা দেয়ায়। জোট, মহাজোটের বাইরে-ভেতরের রাজনৈতিক দলগুলো স্ব-স্ব প্রার্থিতা ঘোষণা দেয়ায় প্রার্থী জট কাটছে না। একই দলের একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দানে নানা সমীকরণ মেলাচ্ছেন ভোটাররা। কে থাকছে কে থাকছে না- এটা নিয়েও যেমন ভাবছে প্রার্থীরা, ভাবনা থেকে বাদ নেই ভোটারাও। আবার অনেক প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিলেও প্রচারে নেই- রয়েছেন ভোটারদের আড়ালে।
ফলে ভোটাররা মেলাতে পারছেন না, বাড়ছে শুধুই ভোটের উত্তাপ।
চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত কুড়িগ্রাম-৪ আসন। এ আসনে মোট ভোটার দুইলাখ ৮৯ হাজার ১১২ জন। এর মধ্যে নদীর এপাড়ে চিলমারী ওপাড়ে রৌমারী ও রাজিবপুর। কুড়িগ্রাম জেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় তথ্যমতে- কুড়িগ্রাম-৪ আসনে স্বতন্ত্রসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ২৩ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টি মনোনীত মো. রুহুল আমিন, সাবেক এমপি ও সাবেক বন প্রধান মো. গোলাম হাবিব (স্বতন্ত্র), আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক এমপি জাকির হোসেন, জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী সাবেক রাষ্ট্রদূত অবসরপ্রাপ্ত মেজর আশরাফ-উদ-দৌলা, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. আজিজুর রহমান ও সহকারী অধ্যাপক মো. মোখলেছুর রহমান, গণতন্ত্রী পার্টির আব্দুস সালাম কালাম, মো. আনছার উদ্দিন (ইসলামী আন্দোলন), খেলাফত মজলিসের মো. আবু সাইয়েদ, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী) প্রার্থী আবুল বাসার মঞ্জু, বাংলাদেশের বিপ্পবী ওয়ার্কার্স পার্টির মো. মহী উদ্দিন আহমেদ, জাকের পার্টির মো. শাহ্‌ আলম, মো. মাহফুজার রহমান (গণফোরাম) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের রয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা কেএম ফজলুল হক মণ্ডল (স্বতন্ত্র), অ্যাডভোকেট এসএম জাহাঙ্গীর আলম (স্বতন্ত্র), মো. আবিদ আলভী জ্যাপ (স্বতন্ত্র), জাতীয় পার্টির নেতা অধ্যক্ষ মো. ইউনুছ আলী (স্বতন্ত্র), বিএনপি নেতা মো. শামছুল হক (স্বতন্ত্র), মো. ইমান আলী (স্বতন্ত্র), গণজাগরণের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার (স্বতন্ত্র), আবুল হাসেম (স্বতন্ত্র), জামায়াত নেতা মো. মোস্তাফিজুর রহমান (স্বতন্ত্র), মো. বাবুল খান (স্বতন্ত্র)। এদিকে, এ আসনে ইতিপূর্বে জাতীয় পার্টির আধিপত্য থাকলেও তা ভেঙে দেয় আওয়ামী লীগের প্রার্থী কিন্তু তাকে পরাজিত করেন জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রার্থী রুহুল আমিন। ফলে কেউ কোনো হিসেবেই মেলাতে পারছেন না বলে মন্তব্য করেন সচেতন মহল। অনেকেই বলেন, এই আসনে এবারের হিসেব এখনো মেলাতে না পারলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি গোলাম হাবিব রয়েছেন আলোচনায়। আবার অনেকে মন্তব্য করেন, শেষ পর্যন্ত কে কে থাকছে তার ওপর শুরু হবে সঠিক হিসাব নিকাশ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর