× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, শুক্রবার

গণধর্ষণের পর আটকে রেখে মুক্তিপণ দাবী

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে | ৪ ডিসেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ১২:৪০

সাভারের আশুলিয়ায় স্বামীকে আটকে রেখে নারী পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণের পর মুক্তিপণ দাবী। ঘটনার মূল হোতাসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুুলিশ। এঘটনায় আশুলিয়া থানায় মামলা দায়েরের পর ধর্ষণের শিকার ওই নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পাঠানো হয়েছে। আজ ভোররাতে আশুলিয়ার নরসিংহপুর সোনা মিয়া মার্কেট এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- নরসিংহপুর এলাকার মো. জিন্নাহ’র ছেলে জাহিদুল ইসলাম (২২), একই এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে আজাদ হোসেন (২৪), জলিল সরকারের ছেলে রানা সরকার (২৮), কোণাপাড়া এলাকার আব্দুল সোবহান শেখের ছেলে রবিউল শেখ (২০), একই এলাকার মো. রিয়াজুলের ছেলে রুবেল (২২) ও ঘোষবাগ এলাকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে সাগর হোসেন (২৪)। তবে রাজন ও সোহাগ নামে আরও দুই ধর্ষণকারী পলাতক রয়েছে।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজিকুল ইসলাম জানান, রোববার সন্ধ্যায় নরসিংহপুর সোনা মিয়া মার্কেট এলাকায় বন্ধুর বাড়িতে গার্মেন্টকর্মী স্ত্রীকে নিয়ে বেড়াতে আসেন তার স্বামী। এসময় স্থানীয় ইউপি সদস্য তাহের মৃধার ম্যানেজার রাজন, তার সঙ্গী রবিউলসহ সাতজন মিলে ওই দম্পতিকে আটক করে স্বামী-স্ত্রী কি না জানতে চান।
একপর্যায়ে তারা সোনা মিয়া মার্কেট এলাকার একটি বাড়িতে স্বামী ও স্ত্রীকে পৃথক কক্ষে আটকে রেখে পরে রাতে রাজনসহ তার সঙ্গীরা গার্মেন্টকর্মী ওই নারীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং ওই দম্পতির পরিবারের নিকট মুঠোফোনে ২০ হাজার টাকা দাবী করে মুক্তিপণ হিসেবে ধর্ষণকারীরা। এঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে আশুলিয়া থানায় বিষয়টি জানিয়ে অভিযোগ করা হলে মুক্তিপণের টাকা প্রদানের শর্তে ফাঁদ পাতে পুলিশ। পরে সোমবার রাতে সোনা মিয়া মার্কেট এলাকায় রবিউল ও রুবেল মুক্তিপণের টাকা নিতে আসলে পুলিশের সহায়তায় তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর