× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার

খানেই উজ্জীবিত ঘাটাইল আওয়ামী লীগ

বাংলারজমিন

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ৫ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৯:১৪

 টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনে বর্তমান এমপি আমানুর রহমান খান রানার পরিবর্তে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে তার বাবা আতাউর রহমান খানকে। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। আর আতাউর রহমানকে মনোনয়নেই নতুন করে প্রাণ ফিরে এসেছে আওয়ামী লীগে। দীর্ঘদিন ধরেই উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক লেবুর একঘেয়েমি নেতৃত্বে কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে এমপি আমানুর রহমান রানার লোকজন ছিল অবহেলিত। তাদেরকে এক ধরনের ওএসডি করে রাখা হয়েছিল। একক কর্তৃত্ব ছিল লেবু ও তার লোকজনের হাতে। আতাউর রহমানকে পেয়ে অবহেলিত নেতা কর্মীরা আজ উজ্জীবিত।
মিষ্টি বিতরণ থেকে শুরু করে শোডাউনে মুখরিত পুরো ঘাটাইল। এ আসনটিতে খান পরিবার জনপ্রিয়তার শীর্ষে ওঠে এমপি ডা. মতিয়ার রহমানের মৃত্যুর পর স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার মাধ্যমে। ২০১২ সালের ১৩ই সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ডা. মতিউর রহমান মারা গেলে উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চান খান পরিবারের উত্তরসূরি তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমানুর রহমান খান রানা। কিন্তু উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পান শহীদুল ইসলাম লেবু। মনোনয়ন বঞ্চিত রানা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে উপনির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হন আমানুর রহমান খান রানা। আমানুর রহমান খান রানা আনারস প্রতীক নিয়ে পান ৯৭,৮০৮ ভোট আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী শহীদুল ইসলাম লেবু নৌকা প্রতীক নিয়ে পান ৪৪,৫৩১ ভোট। মোট কথা প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে দ্বিগুণ ভোট বেশি পেয়ে তিনি বিজয়ী হন। ২০০১৪ সালে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকিটে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন। বর্তমানে ফারুক হত্যা মামলায় এমপি রানা কারাগারে রয়েছেন। তাই রানার সেই জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে আতাউর রহমান খানকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছ।
আতাউর রহমান খানের বিষয়ে রসুলপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. এমদাদুল হক সরকার বলেন, আমানুর রহামান খান ঘাটাইলে স্মরণকালের একজন জনপ্রিয় এমপি। আর তার বাবা নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন এতে আমরা খুবই আনন্দিত। দেওপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাইনউদ্দিন তালুকদার তারু বলেন, আমরা আতাউর রহমান সাহেবের জন্য কাজ শুরু করে দিয়েছি। তিনি আওয়ামী লীগের জন্য একজন নিবেদিত প্রাণ।

পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান খান বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দিয়েছেন তিনি একজন সৎ এবং যোগ্য ব্যক্তি। আমরা তার হয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করে যাবো। উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদুর রহমান আতাউর রহমান খানের মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন ত্যাগী আওয়ামী লীগের কর্মীকে মনোনয়ন দিয়েছেন। আমরা সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করে যাবো। উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের রায় দেখে মনোনয়ন দিয়েছেন। সেদিক থেকে আমাদের প্রার্থীর কোনো তুলনা নেই। আতাউর রহমান খান বলেন, দলের ভালোবাসায় আমি এ আসনে মনোনয়ন পেয়েছি। জনগণের ভালোবাসা নিয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে এ আসন উপহার দেবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর