× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার

শরীয়তপুরে বিএনপির ২৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

বাংলারজমিন

শরীয়তপুর প্রতিনিধি | ৫ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৯:৩০

আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগ এনে শরীয়তপুর-২ আসনের নির্বাচনী এলাকার বিএনপির ২৭ নেতার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুর থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মো. মানিক। মামলায় আরো ৩৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। নির্বাচনের মুহূর্তে এমন মামলা দিয়ে নেতাদের নির্বাচনের মাঠ থেকে দূরে রাখা, আতঙ্ক সৃষ্টি ও হয়রানির অভিযোগ করেছে বিএনপি। শরীয়তপুর-২ আসনটি নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জের সখীপুর থানার নয়টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। ওই আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম। আর বিএনপির প্রার্থী জেলা কমিটির সভাপতি সফিকুর রহমান কিরন। মামলার আসামিরা সবাই সফিকুর রহমানের সমর্থক।
মামলার বাদী এনামুল হক শামীমের সমর্থক।
মামলার এজাহার  সূত্রে জানা গেছে, গত ১লা ডিসেম্বর সন্ধ্যায় দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের মাল বাজার এলাকায় এনামুল হক শামীমের সমর্থনে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা চলছিল। তখন সেখানে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সখিপুর থানা যুবদলের সহসভাপতি  শাহাদাত বেপারীর নেতৃত্বে বিএনপির ৬০-৬৫ নেকা-কর্মী ওই বর্ধিত সভায় হামলা চালান। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগের দুই নেতা  আহত হয় বলেও মামলায় উল্লেখ করা হয়। সোমবার সখিপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন তারাবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মো. মানিক।
মামলার আসামিরা হলেন, আরসিনগর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও সখিপুর থানা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আজমল হক নান্টু মালত, সখিপুর থানা যুবদলের সভাপতি ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাক আহম্মেদ মাসুম বালা, বিএনপি নেতা ও দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুদ্দিন দর্জি, সখিপুর থানা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মানিক বকাউল, সখিপুর থানা যুবদলের  সহসভাপতি শাহাদাত বেপারী, সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান রাজিব সরদার, বিএনপি নেতা ও দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউপির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মোতালেব মাল, সখিপুর থানা ছাত্রদলের সভাপতি নিহাদ সরদার, সাধারণ সম্পাদক মাইদুল ইউসুফ জিসান বালা, দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি ওসমান তাঁতী ও সাধারণ সম্পাদক কামাল বেপারীসহ ২৭ জন।
সখিপুর থানা যুবদলের সভাপতি ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাক আহম্মেদ মাসুম বালা বলেন, এটি একটি মিথ্যা মামলা। ওই দিন মামলার কোন আসামি ঘটনাস্থলে ছিল না। সেদিন শরীয়তপুর-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী শফিকুর রহমান কিরণের বাড়িতে বিএনপির একটি ঘরোয়া সভা ছিল। এই অঞ্চলের সকল নেতাকর্মী সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন। আমরা যাতে প্রচার প্রচারণা করতে না পারি। নির্বাচনের মাঠ থেকে দূরে থাকি এ কারণে মিথ্যা মামলাটি দেয়া হয়েছে।  তিনি দাবি করেন, মামলার আসামি দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন যুবদল নেতা  মামুন চৌধুরী এক বছর যাবত সৌদি আরব আছেন। তাকেও এ মামলায় আসামি করা হয়েছে।
মামলার বাদী দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মো. মানিক মুঠোফোনে বলেন, আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বিএনপির নেতাকর্মীরা পাঁচ-ছয়টি  ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে, হামলা করেছে। তাদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করার জন্য মামলাটি করা হয়েছে। সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক বলেন, দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটনায় মানিক শেখ নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আর দেশের বাহিরে থাকা কোনো ব্যক্তি আসামি হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর