× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার

ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের গভর্নরের পদত্যাগ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার, ৭:৫৬

স্বশাসনসহ একাধিক ইস্যুতে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে ভারতের কেন্দ্রীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের বোর্ডের দ্বন্দ্ব বেশ কিছুদিন ধরেই তীব্র আকার ধারণ করেছিল। সেই দ্বন্দ্বের পরিপ্রেক্ষিতে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্ণরের পদত্যাগের সম্ভাবনা নিয়ে গুঞ্জন চলছিল। শেষপর্যন্ত সেই গুঞ্জন সত্যি হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর উর্জিত প্যাটেল পদত্যাগ করেছেন। সংবাদ সংস্থা সুত্রে জানা গেছে, তিনি সরকারের কাছে তাঁর পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। ২০১৬ সালের রঘুনাথ রাজনের মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্তে সরকার রাজি না হওয়ায় উর্জিত প্যাটেলকে নতুন গভর্নর নিয়োগ করা হয়েছিল। সেই হিসেবে উর্জিত প্যাটেলের মেয়াদ ছিল আরও এক বছর। কিন্তু তার আগেই ব্যাক্তিগত কারণ উল্লেখ করে তিনি পদত্যাগ করায় সোরগোল তৈরি হয়েছে।


তথ্যাভিজ্ঞ মহলের মতে, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের কাজকর্মে ‘সরকারি হস্তক্ষেপ’ই এর কারণ। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সঙ্গে সর্বশেষ সরকারের গোলমাল বেঁধেছিল রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তহবিল নিয়ে। তহবিলের একটা অংশ সরকারি কোষাগারে স্থানান্তরিত করার জন্য কিছুদিন ধরেই চাপ ছিল উর্জিতের উপর। সরকার চাপ দিয়ে আসছিল যে, রিজার্ভ ব্যাঙ্কে থাকা উদ্বৃত্ত তহবিল উন্নয়নের কাজে ব্যবহার করা হোক। কিন্তু ব্যাঙ্কের বক্তব্য ছিল, জরুরি অবস্থার মোকাবেলার জন্য এই সঞ্চিত তহবিল থাকা খুবই জরুরি।

রিজার্ভ ব্যাঙ্কে বর্তমানে প্রায় ৩.৬ লক্ষ কোটি রুপি উদ্বৃত্ত তহবিল রয়েছে। তবে গত মাসে ব্যাঙ্ক দীর্ঘ ৯ ঘন্টার বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, উদ্বৃত্ত তহবিলের কতটা সরকারের হাতে দেওয়া সম্ভব তা খতিয়ে দেখতে একটি কমিটি তৈরি করা হোক। গত অক্টোবর থেকেই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সঙ্গে সরকারের বিরোধ তীব্র আকার ধারণ করেছিল। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ডেপুটি গভর্নর বিরলর আচার্য বলতে বাধ্য হয়েছিলেন, সরকার রিজার্ভ ব্যাঙ্কের স্বশাসনে হস্তক্ষেপ করছেন, যা ব্যাঙ্কের কাজে পক্ষে ভাল নয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর