× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ মার্চ ২০১৯, রবিবার

ছাত্রলীগের হাতে রক্তাক্ত কোটা আন্দোলনের তিন নেতা

শিক্ষাঙ্গন

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮, রবিবার, ৬:২৩

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ‘নিরাপদ বাংলাদেশ চাই’ শিরোনামে এক কর্মসূচি পালনের আগ মূহুর্তে তিন শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে ছাত্রলীগ। বিকেল ৩টার দিকে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার তিন শিক্ষার্থী হলেন- সোহরাব হাসান, জসিম উদ্দিন আকাশ ও জালাল আহমেদ। এরা সবাই কোটা সংস্কারের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীদের গড়ে ওঠা প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক। সোহরাব হাসান বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সোহানুর রহমান ও শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের স্কুল ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদুল শানের নেতৃত্বে আমাদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা চালায়।’

তিনি বলেন, ‘হামলার পর জসীম উদ্দিন আকাশকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার খোঁজ এখনো আমরা জানি না।’ তবে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস বলেন, ‘কে কাকে মেরেছে- আমি এমন কিছু জানি না। এর সঙ্গে ছাত্রলীগের কারো সম্পৃক্ততা নেই।’ যদিও ‘নিরাপদ বাংলাদেশ চাই’ কর্মসূচির সঙ্গে সম্পৃক্ত শিক্ষার্থী ফাহিম রহমান খান পাঠান বলেন, ‘আমরা ৮-১০ জন টিএসসিতে আড্ডা শেষে ক্যাফেটেরিয়াতে খাবার নিয়ে খেতে বসি।
তখন আমাদের উপর ছাত্রলীগের বিভিন্ন হলের পদধারী নেতাসহ প্রায় ৮০-৯০ জন নৃশংসভাবে হামলা করে।’ এদিকে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, ‘আমাদের কয়েকজন নেতাকর্মী ‘নিরাপদ বাংলাদেশ চাই’ এর কর্মসূচিতে সমর্থন দিতে গেলে তাদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা করে। আমরা এ হামলা তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কাছে আহ্বান জানাই।

একই সাথে হামলার প্রতিবাদে কোন কর্মসূচি দেয়া যায় কিনা আমরা সভা করে সিদ্ধান্ত নিবো।’ ভুক্তভোগীরা জানান, কর্মসূচি পালনের আগে দুপুর আড়াইটার দিকে টিএসসি খেতে বসলে তাদের উপর ২০-২৫ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী অতর্কিতভাবে হামলা করে। হামলাকারীরা সবাই বিভিন্ন হলের নেতাকর্মী। হামলাকারীরা মারধরের সময় টিএসসির গেট আটকে দেয় বলেও অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। তাদের মারধরে সোহরাব হাসানের নাক ফেটে রক্ত বের হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এছাড়াও জসিম উদ্দিন আকাশ, জালাল আহমেদসহ আরো কয়েকজন ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর