× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৫ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার

নারায়ণগঞ্জে নির্বাচন নিয়ে আন্তঃবাহিনীর সমন্বয় সভায় যে আলোচনা হলো

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৯:৪৪

আসন্ন সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার তত্ত্বাবধানে আন্তঃবাহিনী সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার সেলিম রেজা বলেন, সারা দেশে ৪২ হাজার কেন্দ্রে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। অনেকগুলো সংগঠন একসঙ্গে থাকলে খুবই প্রয়োজন হলো  সমন্বয় যার মাধ্যমে নির্বাচনের চ্যালেঞ্জ পার হতে হবে। নারায়ণগঞ্জের রিটার্নিং অফিসার রাব্বি মিয়া অত্যন্ত দক্ষ।

আমার বিশ্বাস তিনি একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নারায়ণগঞ্জবাসীকে উপহার দেবেন। রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া বলেন নারায়ণগঞ্জ বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা। নির্বাচনকে পুঁজি করে কোনো অপশক্তি যাতে নারায়ণগঞ্জের অগ্রযাত্রা ও মানুষের শান্তি ব্যাহত করতে না পারে সে বিষয়ে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য উপস্থাপন করে বলেন, নির্বাচন-পূর্ব আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখাসহ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আচরণ বিধিমালা প্রতিপালন নিশ্চিতকরণে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ ও বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটগণ মাঠ পর্যায়ে কাজ করবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নির্বাচন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করায় অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা আরো দৃঢ় হয়েছে।
মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী সেনাবাহিনীকে কাজের উপর গুরুত্ব প্রদান করতে হবে।

তিনি বলেন, দেশি বিদেশি পর্যবেক্ষক এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের নির্বাচনের দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা নিশ্চিত করতে হবে। তবে সংবাদ আহরণের কাজে নিয়োজিত সংবাদকর্মীদের সংশ্লিষ্ট আচরণবিধি মেনে চলা আবশ্যক।
সভায় ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. রাকিব বলেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের ৫টি নির্বাচনী আসনে প্রায় ৪০০ সেনা সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। জেলায় ইতিমধ্যে ৫টি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। ‘ইনস্ট্রাকশন রিগার্ডিং ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’ অনুযায়ী রিটার্নিং অফিসারের পরামর্শে ও অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে জাতির প্রত্যাশা মেটাতে সেনাবাহিনী বদ্ধপরিকর।
বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) নারায়ণগঞ্জ ব্যাটালিয়নের সিও লে. কর্নেল আল-আমিন বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা স্থিতিশীল রাখতে নারায়ণগঞ্জ জেলায় ইতিমধ্যে দায়িত্ব পালন করছে বিজিবির প্রায় ৪৫০ সদস্য। অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে রিটার্নিং অফিসারের পরামর্শে বিজিবি তাদের ওপর অর্পিত পবিত্র দায়িত্ব পালনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।
র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১১ এর সিও কমান্ডার রাসেল আহমেদ বলেন, র‌্যাব জঙ্গি দমন, মাদক নির্মূল ও সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ইতিমধ্যে নারায়ণগঞ্জ তথা দেশবাসীর আস্থা অর্জন করেছে। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০১৮ অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে নিয়মিত টহল, সকল বাহিনীর মধ্যে যৌক্তিক ও কার্যকর সমন্বয়, পরামর্শকরণ ও উদ্ভূত বিশেষ পরিস্থিতি মোকাবিলায় করণীয় বিষয়ে আলোকপাত করেন।
জেলা পুলিশ সুপার মো. হারুন অর রশীদ বিপিএম, পিপিএম (বার) বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে জেলা পুলিশের কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে অনেক আগে থেকেই। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে গৃহীত হয়েছে কর্মপদ্ধতি ও কৌশল। রিটার্নিং অফিসারের পরামর্শে অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে পবিত্র দায়িত্ব পালনে সকল কর্ম সম্পাদনে জেলা পুলিশ বদ্ধপরিকর।
সভায় অন্যান্য বাহিনীর প্রতিনিধিগণ তাদের বিভাগের কার্যক্রম তুলে ধরেন। সভায় উপস্থিত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসাররা জানান, তাদের উপজেলার আইনশৃঙ্খলা ও সার্বিক নির্বাচন পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। এজন্য সরকারি রিটার্নিং অফিসাররা জেলা প্রশাসক, এসপি, সিও র‌্যাব, সিও বিজিবিসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। সভায় উপস্থিত এনএসআই, ডিজিএফআইসহ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা তাদের বিভাগের গোয়েন্দা তথ্যের আলোকে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর