× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ জুন ২০১৯, বুধবার

‘মেয়েদের স্কুল-কলেজে দেবেন না’

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম ও হাটহাজারী প্রতিনিধি | ১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ১০:০৫

মেয়েদের স্কুল-কলেজে না পড়াতে এবং পড়ালেও সর্বোচ্চ ক্লাস ফোর বা ফাইভ পর্যন্ত পড়ানোর জন্য ওয়াদা নিলেন হেফাজতে ইসলামের আমীর শাহ আহমদ শফি।

গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজের পর চট্টগ্রামের আল জমিআ’তুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসা প্রাঙ্গণে মাদরাসার বার্ষিক মাহফিল ও দস্তারবন্দি সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে ওয়াজ (বক্তব্য) করার সময় উপস্থিত লোকজনকে এই ওয়াদা করান তিনি। এ সময় মাহফিলে উপস্থিত ১৫ হাজারের অধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান হাত তুলে ওয়াদা করেন। ওয়াজের একটি অডিও রেকর্ড মানবজমিনের কাছে সুরক্ষিত আছে।

শাহ আহমদ শফি বক্তব্যে বলেন, আপনাদের মেয়েদের স্কুল-কলেজে দেবেন না। ক্লাস ফোর বা ফাইভ পর্যন্ত পড়াতে পারবেন। আর বেশি যদি পড়ান..., পত্র-পত্রিকায় তো দেখতেছেন। মেয়েকে ক্লাস এইট, নাইন, টেন, এমএ, বিএ পর্যন্ত পড়ালে ওই মেয়ে কিছুদিন পর আপনার মেয়ে থাকবে না। বেশি পড়ালে আপনার মেয়েকে টানাটানি করে অন্য পুরুষ নিয়ে যাবে।
এ ওয়াজটা মনে রাখবেন। তাই আপনারা আমার সঙ্গে ওয়াদা করেন। আপনার মেয়েকে স্কুল-কলেজে পড়াবেন না।

এ সময় উপস্থিত ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ হাত তুলে ওয়াদা করেন। এ ছাড়া তিনি পুরুষদের সুন্নত মোতাবেক দাড়ি রাখা, নামাজ পড়া ও মেয়েদের পর্দা করানোর বিষয়ে উপস্থিত সবার কাছ থেকে হাত উঠিয়ে প্রতিশ্রুতি নেন। পরে দোয়া পরিচালনার মাধ্যমে তিনি বক্তব্য শেষ করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
রুহুল আমিন
১১ জানুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, ৭:১২

ধর্মীয় নেতা ধর্ম পালনের অঙ্গিকার নিয়েছেন, একজন ধর্মীয় নেতার এটাই করনীয়। তাই হযরাতকে হাজার সালাম।

sdd
১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ৫:১৪

আমরা বার বার বলছি যে শফি ও তার দল হেফাজত দুটোই মধ্যযুগীয় বর্বর, বাতিল মাল। এদের মাদ্রাসায় যারা পড়ে ও পড়ায়, তারাও আজকের দিনের অনুপযুক্ত। এদের শিক্ষাকে মর্যাদা দেয়ার আগে সরকারের আরো ভাবা উচিত ছিল।

আনিস উল হক
১১ জানুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৪০

হুজুরের ফতোয়া মানা হলে মেয়েরা তাহলে মেডিকেলে পড়তে পারবে না।তাতে দেশে কোন মহিলা ডাক্তার থাকবে না।মায়েদের প্রসবকালীন সেবা নিতে হবে পুরুষ ডাক্তারের কাছে।এ বিষয়ে হুজুরের মত জানলে ভাল হত।

অন্যান্য খবর