× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২২ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার
আলাপন

‘দু’সপ্তাহ পর অভিনয়ে ফিরেছি’

বিনোদন

এন আই বুলবুল | ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, রবিবার, ১০:২২

জনপ্রিয় অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন। নতুন বছরে গতকালই প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালেন তিনি। ‘জুলি বিউটিফুল’ শিরোনামের নতুন একটি ধারাবাহিকের শুটিং দিয়ে নতুন বছরের কাজ শুরু করলেন বলে জানান এই অভিনেতা। এটি নির্মাণ করছেন বিপ্লব হায়দার। এই ধারাবাহিকে এই অভিনেতা দর্শকের সামনে আসছেন নতুন একটি চরিত্রের মধ্য দিয়ে। এর আগে এমন চরিত্রে তাকে দেখা যায়নি। ধারাবাহিকটি প্রসঙ্গে মিলন বলেন, ধারাবাহিকের নামটি শুনলেই বোঝা যায় এটি একটি মেয়ের গল্প নিয়ে। এটিতে আমি জুলি চরিত্রে অভিনয় করছি।
এখানে আমাকে একটি মেয়ের ভূমিকায় দেখা যাবে। চরিত্রটি অনেক চ্যালেঞ্জের। কারণ, একজন ছেলেকে মেয়ে হিসেবে মেকাপ-গেটআপে আসা অনেক কঠিন। চ্যালেঞ্জ নিতে ভালো লাগে। তাই এই চরিেেত্র অভিনয় করছি। নতুন বছরে এরইমধ্যে বেশ কিছুদিন কেটে গেল। এই কয়দিন কেমন গেল? এ প্রসঙ্গে মিলন বলেন, আমি দু’সপ্তাহ পর অভিনয়ে ফিরেছি। কারণ, গেল দু’সপ্তাহ আমি আমেরিকায় ছিলাম। সেখানে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটিয়েছি। পরিবারের সঙ্গে থাকলে সময়গুলো ভালোই কাটে। নতুন বছরের শুরুতে নতুন সরকার গঠিত হয়েছে। নতুন সরকার নিয়ে মিলনের প্রত্যাশা কি? এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমাদের দেশ আগের চেয়ে অনেক এগিয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের উন্নতি হয়েছে। তবে আমাদের আরো এগিয়ে যেতে হবে। একটি দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সকলের প্রচেষ্টা থাকতে হবে। আমি প্রত্যাশা করি, সরকার আমাদের সাধারণ জনগণের নিরাপত্তাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় বিষয়গুলোর দিকে গুরুত্ব দেবেন। ছোট পর্দার পশাপাশি আসছে ১৭ই জানুয়ারি থেকে বড় পর্দার কাজ নিয়েও ব্যস্ত হয়ে পড়বেন জানান। সম্প্রতি ‘লীলাবতি’ শিরোনামের একটি চলচ্চিত্রে তিনি চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। শরৎচন্দ্রের জনপ্রিয় উপন্যাস পল্লীসমাজ। জমিদারি প্রথা, গ্রাম্য রাজনীতি এবং প্রেম-প্রণয়ের এই উপন্যাস অবলম্বনে এবার নির্মিত হচ্ছে চলচ্চিত্র। এটি নির্মাণ করছেন তরুণ পরিচালক জোবায়ের ইবনে বকর। উপন্যাস থেকে এটির চিত্রনাট্য লিখেছেন কলকাতার পিনাক দেব। শরৎচন্দ্রের গল্পে অভিনয় প্রসঙ্গে মিলন বলেন, সাহিত্যনির্ভর ছবিগুলো একজন শিল্পীকে অনেকদিন বাঁচিয়ে রাখে। আমি এর আগেও শরৎচন্দ্রের গল্পে অভিনয় করেছি। আরিফুর জামান আরিফের ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ শিরোনামের চলচ্চিত্রে আমাকে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যাবে। আমাদের আরো বেশি সাহিত্যনির্ভর ছবি নির্মাণ প্রয়োজন বলে আমি মনে করি। এদিকে খুব শিগগির মুক্তি পাবে মিলন অভিনীত ‘রাত্রির যাত্রী’ শিরোনমের একটি চলচ্চিত্র। এটি নির্মাণ করেছেন হাবিবুল ইসলাম হাবিব। এই ছবিতে মিলনকে দেখা যাবে প্রিয়দর্শিনী অভিনেত্রী মৌসুমীর বিপরীতে। ছবিটি নিয়ে মিলন দারুণ আশাবাদী। একটি রাতের গল্প নিয়ে ছবিটি নির্মাণ হয়েছে বলে জানান তিনি। এই অভিনেতার হাতে আরো রয়েছে ‘সেভ লাইফ’, ‘সাদাকালো প্রেম’ ও ‘পাপ কাহিনি’ শিরোনামের কয়েকটি চলচ্চিত্র। এই সময়ে আমাদের চলচ্চিত্রের পরিবেশ কেমন বলে মনে করেন এই অভিনেতা? মিলন বলেন, আমাদের এখন আগের চেয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের সংখ্যা কমে গেছে। একটা সময় প্রতি সপ্তাহে নতুন চলচ্চিত্র মুুক্তি পেত। এখন  সেটি আর দেখা যায় না। এটি আমাদের জন্য দুঃখজনক বিষয়। আমাদের চলচ্চিত্রের সবাইকে এই বিষয়টির দিকে গুরুত্ব দিতে হবে। প্রতি সপ্তাহে একটি চলচ্চিত্রও যদি মুক্তি পায় তাহলে দর্শক হলমুখী হবে ধীরে ধীরে। চলচ্চিত্র-নাটক দুই অঙ্গনেই নতুনেরা দর্শকের মনে জায়গা করতে পারছে না। এর কারন কী? এই প্রশ্নের উত্তরে মিলন বলেন, দর্শক এখন সারা বিশ্ব হাতের মুঠোয় নিয়ে ঘুরে। সেখানে যদি ভালো কিছু না হয় কেটি দর্শক সেটি গ্রহণ করবে। দর্শকের মনে জায়গা করতে হলে ভালো কিছু দিয়েই পর্দায় আসতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর