× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২২ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার

বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিকে থাকেন না জাবি’র হল প্রভোস্টরা

শিক্ষাঙ্গন

জাবি প্রতিনিধি | ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:১২

দেশের একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।  ছেলেদের ৮টি এবং মেয়েদের ৮ টি মিলিয়ে মোট ১৬ টি হল বিশ্ববিদ্যালয়ে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ৫ টি হলের প্রভোস্ট বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিকে থাকেন না।
প্রভোস্টের জন্য নির্দিষ্ট কোয়ার্টার থাকার পরও ক্যাম্পাসে থাকেন না মীর মশাররফ হোসেন হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক শফি মু. তারেক। ধারণ ক্ষমতা ৭০০ শিক্ষার্থীর হলেও বৈধ-‘অবৈধ’ মিলিয়ে প্রায় ১২০০ ছাত্র থাকে এই হলে। কিন্তু হল প্রভোস্ট থাকেন সিঅ্যান্ডবি-আশুলিয়া সড়কের অরুণাপল্লী আবাসিকে। গত কয়েকমাসে হল ছাত্রলীগ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে বিরোধে জড়িয়ে পড়লেও হল প্রভোস্ট সংকট সমাধানে দৃশ্যমান হননি। যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মীর মশাররফ হলের প্রভোস্টের জন্য নির্ধারিত বাসাটি বসবাসের অনুপযুক্ত। এটা সংস্কার করার জন্য ইঞ্জিনিয়ার অফিসে চিঠি দেয়া হয়েছে ৬ মাস আগে কিন্তু তারা কোনো উদ্যোগ নেননি।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায় বাসাটি খালি পড়ে আছে। তবে এই বাসা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিকে অনেক ভালো বাসা রয়েছে বসবাসের জন্য। কিন্তু হল প্রভোস্টরা সেখানে থাকছেন না। গতবছরের ১১ এপ্রিল সদ্য নির্মিত বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ পান অধ্যাপক আবদুল্লাহ হেল কাফি। তার ও ঠিকানা অরুণাপল্লী আবাসিক। সদ্য নির্মিত এই হলে গ্যাস সংযোগ না থাকা, ক্যান্টিন ও ডাইনিং না থাকাসহ নানা সংকট রয়েছে। হল শাখা ছাত্রলীগের মধ্যেও প্রায় অসন্তোষ দেখা দেয়। কিন্তু হলের নিয়মিত দাপ্তরিক কাজের জন্য ফাইল নিয়ে যেতে হয় হল প্রভোস্টের বিভাগে। এমনকি হলের একজন স্টাফকে তিনি সবসময় নিজের বিভাগে রেখে দেন। যোগযোগ করা হলে অধ্যাপক আবদুল্লাহ হেল কাফি বলেন, ‘আমার আগে অনেক প্রভোস্ট-ই ক্যাম্পাসে থাকতেন না। আমার ক্যাম্পাসে না থাকা নিয়ে প্রশাসনিক কাজে খুব একটা সমস্যা হয় না। একই সময়ে শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট হন অধ্যাপক বশির আহমেদ। তার ঠিকানাও অরুণাপল্লী আবাসিক।
কারণ জানতে চাইলে অধ্যাপক বশির আহমেদ বলেন, ‘সাবেক ভিসি অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরের সময় থেকে এটা হয়ে আসছে। এর আগে প্রীতিলতা হলের প্রভোস্ট লুৎফুর রহমান, ফজিলাতুন্নেছা হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক শাহেদুর রশিদও থাকতেন না বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিকে। আমি হল প্রভোস্ট হওয়ার আগে থেকে অরুণাপল্লীতে থাকছি। বাইরে থাকলেও হলের কাজের জন্য রাত ৯/১০ টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকি।’ তিনি আরও বলেন যারা ক্যাম্পাসে থাকেন তাদের অনেকেই নিয়মিত হলে যায় না।
২০১৭ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম খালেদা জিয়া হলের ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক প্রভোস্ট হোসনে আরা। এই হলের জন্য রয়েছে নির্দিষ্ট টিচার কোয়ার্টার কিন্তু হল প্রভোস্ট থাকেন সাভারের ব্যাংক টাউন কলোনিতে। যেখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দূরত্ব প্রায় ১০ কিলোমিটার। ফলে ছুটির দিনগুলোতে হলের কার্যক্রম ব্যাহত হয়। বেশ কিছুদিন আগে ছাত্রলীগে কতিপয় উৎসাহী অংশ হলের নাম পরিবর্তন করার চেষ্টা করলে অনেক চেষ্টা করেও হল প্রভোস্টকে পাওয়া যায়নি। যোগাযোগ করা হলে হোসনে আরা বলেন, ‘আমি ক্যাম্পাসে থাকতে পারবো না এই শর্তে আমাাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসে থাকা  প্রভোস্টদের চেয়েও আমি হলে বেশি সময় দেই।’
নানা সমস্যায় জর্জরিত ছাত্রীদের হল নবাব ফয়জুন্নেসা। হলের প্রভোস্ট হিসেবে সদ্য যোগ দিয়েছেন অধ্যাপক নাহিদ হক। তার ঠিকানাও অরুণাপল্লী আবাসিক। এর আগে এই হলের প্রভোস্ট ছিলেন সহযোগী অধ্যাপক নিগার সুলতানা। তিনিও থাকতেন না ক্যাম্পাসে। এই বিষয়ে জানতে অধ্যাপক নাহিদ হককে একাধিকবার ফোন দিয়েও পাওয়া যায়নি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর