× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার

ইন্দোনেশিয়ায় যৌন সহিংসতা প্রতিরোধে আইন নিয়ে রক্ষণশীলদের ক্ষোভ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ৯:২৪

যৌন সহিংসতা প্রতিরোধে ইন্দোনেশিয়া সরকারের তৈরি করা নতুন আইনের খসড়ার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ও নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে দেশটির কট্টরপন্থি গ্রুপগুলো। দলগুলোর দাবি এ আইন বাস্তবায়ন হলে তাতে ইসলাম ধর্মের অবমাননা হবে এবং বিবাহবহির্ভূত শারীরিক সমপর্ককে উৎসাহিত করবে। এ খবর দিয়েছে আল-জাজিরা।
এ খসড়ার বিরুদ্ধে দুই সপ্তাহ আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুরু হওয়া এক প্রচারণা ও অনলাইন পিটিশনে এখন পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ মানুষ স্বাক্ষর করেছে। এতে নতুন ধর্ষণ আইন বাতিলের জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।

প্রচারণাটি শুরু করেছেন মাইমন হেরাওয়াতি নামের এক ব্যক্তি। তিনি বলেন, এ আইনে জোরপূর্বক যৌন সমপর্ক শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। এমনকি স্বামী জোরপূর্বক শারীরিক সমপর্ক স্থাপন করলেও সেটি শাস্তিযোগ্য এ আইনে। কিন্তু দু’জনের সম্মতিক্রমে যৌন সমপর্কের বৈধতা দেয়া হয়েছে, এজন্য বিয়ের দরকার নেই।


তবে সরকারের সমালোচকরা বলছে, এ আইন পাস হলে সম্মতিসূচক যৌন সমপর্ক বৃদ্ধি পাবে। এমনকি সমকামিতাও। কারণ আইনে কোথাও বলা নেই যে, বিয়ে ছাড়া যৌন সমপর্ক স্থাপন করা যাবে না। বিরোধীদল পিকেএস এ আইনের বিরোধিতা করে জানিয়েছে, এ আইন বেশ উদার এবং এর ফলে ফ্রি সেক্সকে উৎসাহিত করা হবে। অপরদিকে এ আইনের পক্ষেও সক্রিয় রয়েছে ব্যাপক সংখ্যক মানুষ। তাদের একজন আল-জাজিরাকে জানিয়েছেন, ধর্ম কখনো নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতাকে প্রশ্রয় দিতে পারে না। সেটা ধর্ষণ হোক বা যে কোনো ধরণের যৌন হয়রানিই হোক। নারীসহ সকল মানুষের মানবাধিকার রক্ষা করা সরকারের দায়িত্ব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর